পাতা:পৃথিবীর ইতিহাস - প্রথম খণ্ড (দুর্গাদাস লাহিড়ী).pdf/৩৫৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনু ও মনু-পুত্ৰগণ । । o €8ళి anৰ দূর হইলে, একাধিক পুত্র জন্মিবার সম্ভাবনা । সুতরাং একটী পুত্র নরমেধ-বঙ্গে wন করিব, তাহাতে আর আশ্চৰ্য্য কি ?” তখন আর তিনি ভাবিয়া দেখিবার অবসর পান n_gপকণ্ঠে পুত্রের বলিদান পিতামাতার পক্ষে কিরূপ হৃদয়-বিদারক ব্যাপার! যাহ। ৯ক, যথাসময়ে রোহিত নামে র্তাহার এক পুত্রসস্তান জন্মগ্রহণ করিলে, বরুণদেব যজ্ঞের জন্য দেই পুত্র চাহিয়া বসিলেন। কিন্তু পুত্র পরিত্যাগ করিতে পিতার প্রাণ বিদীর্ণ হইতে লাগিল। কেঙ্গে প্রথমে নানারূপ ছলনা করিয়া, দিনক্ষয় করিতে লাগিলেন। পরিশেষে পুত্রকে: জেল শিক্ষার অছিলায় অরণ্যে গুরু-গৃহে পাঠাইয়া দিলেন। হরিশ্চন্দ্রের পুত্র রোহিত অনেক দিন পর্য্যস্ত প্রত্যাবৃত্ত হইলেন না । ক্রোধ-পরবশ হইয়া, বরুণদেব তখন হরিশ্চন্দ্রকে অতিসম্পাত করিলেন । অতিসম্পাতে উদরী-রোগে আক্রান্ত হইয়া, হরিশ্চন্দ্র অশেষ কষ্ট ভোগ করিতে লাগিলেন । তখন, কি প্রকারে রাজার রোগ-মুক্তি হইতে পারে,—তদ্বিষয়ে ব্যবস্থা গৃহীত হইতে লাগিল। ব্রহ্মপুত্ৰ কুলগুরু বশিষ্ঠ ব্যবস্থা দিলেন,—মূল্যপ্রদানে ক্রাতপুত্র দ্বারা নরমেধ যজ্ঞের অনুষ্ঠান করিলেও শাপ মুক্তি হইতে পারে।" অতঃপর কোনও দরিদ্র ব্রাহ্মণের পুত্রকে ক্রয় করিবার জন্য চেষ্টা চলিতে লাগিল। ভূপতির রাজ্য-মধ্যে অজিগৰ্ত্ত নামে এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ ছিলেন । তাহার গুনঃপুচ্ছ, শুনঃশেফ ও শুনলাঙ্গুল নামে তিন পুত্র ছিল। দরিদ্র ব্রাহ্মথের অতি কষ্টে দিনপাত হয় ; ব্রাহ্মণ কোনক্রমেই আপনার ও পুত্ৰগণের গ্রাসাচ্ছাদন নির্বাহ করিতে পারেন না। পুত্রের বিনিময়ে, শত গো-দানের ৪প্রলোভনে, ব্রাহ্মণকে প্রলুব্ধ করিয়া, রাজ-মন্ত্রী তাহার মধ্যম পুত্ৰ শুনঃশেফকে ক্রয় করিয়া আনিলেন । অতঃপর নরমেধযজ্ঞের আয়োজন হইল। কিন্তু বলিদানের পূর্বে বালক ক্ৰন্দন করিতে আরম্ভ করিয়া দিল । বালকের ক্ৰন্দলে ছেদক যুপকাষ্ঠ-বদ্ধ বালককে ছেদন করিতে পরায়ুখ হইল। কিন্তু বালকের পিতা অজিগৰ্ত্ত অধিকতর অর্থলোতে স্বয়ং পুলকে কাটিতে উদ্যত হইলেন। বালক শুনঃশেফের ক্রন্দনে তখন দিগিদগন্ত কঁাপিয়া উঠিল । কৌশিক-নন্দন বিশ্বামিত্র দয়াপরবশ হইয়া, রাজার নিকট শুনঃশেফের প্রাণ ভিক্ষা চাহিলেন । কিন্তু মহারাজ হরিশ্চন্দ্র, শাস্ত্র-পুত্বের প্রাণরক্ষা এবং আপনার রোগ-মুক্তি উভয় বিষয় চিন্তা করিয়া, বিশ্বামিত্রের . প্রার্থনায় কর্ণপাত করিলেন না। বিশ্বামিত্র দুঃখিত হইয়া দয়ার্ড-হৃদয়ে বালককে বরুণ-মন্ত্র শিখাইয়া দিলেন। তাহাতে, বালকের স্তবে সন্তুষ্ট হইয়া, বরুণদেব রাজার প্রতি অনুকম্প প্রদর্শন করিলেন ; রাজা রোগমুক্ত হইলেন। মহর্ষি বিশ্বামিত্র গুনঃশেফকে পুস্বরূপে এহণ করিলেন। ইহার পর, রাজস্থয়-যজ্ঞের অনুষ্ঠান করিয়া, এক মায়াবী বরাহের শহরণে মহারাষ্ট্র হরিশ্চয় বনমধ্যে পথভ্রষ্ট হন। সেই সময় বিশ্বামিত্রের সহিত খাবার তাহার ৪.সাক্ষঞ্চ হয় । তিনি বিশ্বামিত্রকে বলেন,--“আমি অযোধ্যাক্ট্রিপতি মহারাজ হরিশ্চন্দ্র ; আমায় পথ প্রদর্শন করুন।” কথায় কথায় আরও প্রকাশ করেন,— "আমি রাজস্থয়-যজের অনুষ্ঠান করিয়াছি; কল্পতরু হইয়াছি; আপনার যদি কিছু খয়োজন হয়, আমার নিকট প্রার্থনা করিলেই প্রাপ্ত হইবেন।” অনন্তর মহারাজ, See DBBBSDDD BBBB BBBS DBB BBB BBB BBB BBBBBS