পাতা:পৃথিবীর ইতিহাস - প্রথম খণ্ড (দুর্গাদাস লাহিড়ী).pdf/৩৯১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ংশ-পৰ্য্যায় আলোচনা। ৩৭৯ উত্তর দেশের রাজগণের সংখ্যার তারতম্যে বিস্ময়াবিষ্ট ভারতবর্ষ হইতে যে আফ্রিকার বহু নগর-গ্রামের নাম সংগৃহীত হইয়াছে, তিনিও তাহ স্বীকার করিয়াছেন। দৃষ্টান্ত-স্থলে, তিনি বলিয়াছেন,-“গান্ধীয়া এবং সেনীগাল নদীর মোহানায় যে সকল নগর অবস্থিত, তন্মধ্যে অনেকেরই হিন্দু-নাম দেখিতে পাওয়া যায়। যেমন,—“তাম্ব-কুণ্ড' (তামকুণ্ড), ‘কুণ্ড" ইত্যাদি। এসিয়াটিক জৰ্ণালী পত্রিকায়, একজন লেখক দেখাইয়াছেন,—মধ্য আফ্রিকার অধিকাংশ দেশের ও অধিকাংশ স্থানের নাম সংস্কৃত-মূলক । সেই সকল নামের অধিকাংশেরই মূলে তারতবর্ষের প্রভাব বিদ্যমান, তাহাতে সংশয় নাই।" * এক মিশর বলিয়। নহে,-পৃথিবীর যে দিকের প্রাচীন চিত্রের প্রতি দৃষ্টিপাত করি না কেন, সৰ্ব্বত্রই ভারতবর্ষের প্রতিচ্ছবি প্রতিফলিত। f - সুর্য্যবংশের এবং চন্দ্রবংশের নৃপতিগণের বংশ-পৰ্য্যায় আলোচনা উপলক্ষে প্রাচীন মিশর প্রভূতির প্রসঙ্গ উত্থাপন করিয়াছি। কতকটা অবাস্তুর বলিয়। মনে হইলেও ५१-वरएनब *** বুঝিতে পারা যায়,—গণনায় সে দেশের নৃপতিগণের পর্য্যায় বংশ-লতায় সংখ্যা অধিক হইলেও, প্রাচীনত্বে সে দেশ ভারতের সমতুল্য

  • "*"' নহে ; পরস্তু তুলনায় তত্ত্বদেশের সভ্যতা আধুনিক বলিয়া প্রতিপন্ন হইলেও, ভারতীয় নৃপতিগণের বংশ-পৰ্য্যায়ের ক্রমতঙ্গ হেতু, সাধারণের দৃষ্টি স্বতঃই ভ্রান্তপথে প্রধাবিত হইয়া থাকে। যাহা হউক, আমরা দেখিতে পাই,—বৰ্ত্তমান বৈবস্বত মন্বন্তরে ইক্ষাকুই স্বৰ্য্য-বংশীয় ক্ষত্রিয়-স্থপতিগণের আদিভূত। তাহার সম্বন্ধে কোনই মতান্তর নাই । তিনি অন্য দেশ হইতে এ দেশে আসেন নাই । র্যাহার। মধ্যএসিয়া বা উত্তর-মেরু হইতে আর্য্য-হিন্দুগণের ভারতীগমন-বার্তা প্রচার করেন, এই ইক্ষুকু এবং তদ্বংশধরগণের বিবরণ পাঠ করিলেও, তাহাদের সে ধারণ দূর হইতে পারে। কেন-ন, ইক্ষাকু এই ভারতেই জন্মগ্রহণ করিয়া, এই ভারতেই প্রতিষ্ঠাৰিত হইয়াছিলেন ; তাহা হইতেই দিকে দিকে সভ্যতা-স্রোত প্রবাহিত হইয়াছিল ; তাহার এক শত পুত্র ভিন্ন ভিন্ন দেশে রাজ্য-বিস্তার করিয়াছিলেন। ইক্ষাকুর পুত্ৰগণ যে দেশে দেশে রাজ্য-বিস্তার করিয়াছিলেন,—তৎসম্বন্ধে কোনই মতাস্তুর লাই বটে ; কিন্তু তাহার বংশ-লতায় প্রায়ই অনৈক্য দেখিতে পাই। প্রায় সকল পুরাণেই দৃষ্ট হয়,–ইস্কুকুর জ্যেষ্ঠ পুত্র বিকুকি' নামে অভিহিত। কিন্তু রামায়ণে দেখি,—ইক্ষাকুর পুত্রের নাম কুক্ষি ; কুক্ষির পুত্ৰ বিকুক্ষি । এদিকে, বিষ্ণুপুরাণে, ব্ৰহ্মপুরাণে, হরিবংশে, শিবপুরাণে, ভ্রমভাগবতে, দেবভাগবতে, বিকুক্ষিরই অপর নাম ‘শশদ বলিয়। উক্ত হইয়াছে। তাহাতে দেখিতে পাই,-- বিকুকির পুল্লের নাম—শকুনি ও কুকুৎস্থ । কুকুতস্থ-অনেক স্থলেই বিকুক্ষির পুত্র বলিয়: পরিচিত। কিন্তু রামায়ণে দেখি, বিকুক্ষির পুত্রের নাম-বাণ। রামায়ণের বংশলতার এ স্থলে কুকুংস্থের নামোল্লেখ নাই ; কিন্তু পঞ্চবিংশ পৰ্য্যায়ে, ভগীরথ হইতে কুকুৎস্থ এবং

"Tod's Rajasthan, wol. 11, + ভারতবর্ষের সভ্যতাই যে পৃথিবীর ভিন্ন ভিন্ন প্রদেশের সভ্যতার আদিভূত, পরিচ্ছেদাস্তরে তাহ: আলোচনা জষ্টৰ । . . . . . . . . . . . . .