পাতা:প্রবন্ধ পুস্তক-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১১০ ভারতবর্ষের স্বাধীনতা এবং পরাধীনতা । এতক্ষণে অনেকে আমাদিগের প্রতি খড়গহস্ত হইয়াছেন । স্বাধীনতায় যে মুথ তাহাতে সংশয় কি ? যে সংশয় করে সে পাষণ্ড, নরাধম, ইত্যাদি। স্বীকার করি। কিন্তু স্বাধীনতা পরাধীনতা অপেক্ষা কিসে ভাল, তাহা জিজ্ঞাসা করিলে, ইহার সদুত্তয় পাওয়া ভার । বাঙ্গালি ইংরেজি পড়িয়া এ বিষয়ে দুইট কথা শিখিয়াছেন —“Liberty, Independence” of osts of: স্বাধীনতা এবং স্বতন্ত্রতা দুইটী কথা পাইয়াছি। অনেকেরই মনে বোধ আছে যে দুইটী শব্দে এক পদার্থকে বুঝায়। স্বজাতির শাসনাধীন অবস্থাকেই ইহা বুঝায় এইটি সাধারণ প্রতীতি। রাজা ষদি ভিন্নদেশীয় হয়েন, তবে তাহার প্রজাগণ পরাধীন, এবং সেই য়াজ্য পরতন্ত্র। এই হেতু, এক্ষণে ইংরেজের শাসনাধীন ভারতবর্ষকে পরাধীন ও পরতন্ত্র বলা গিয়া থাকে। এই জন্য মোগলদিগের শাসিত ভারতবর্ষকে,ব সেরাজউদৌলায় শাসিত বাঙ্গালাকে পরাধীন বা পরতন্ত্র বলা গিয়া থাকে। এইরূপ সংস্কারের সমূলকতা বিবেচনা করা যাউক । মহারাণী বিক্টোরিয়াকে ইংরেজকন্যা বলা যাইতে পারে, কিন্তু তাহার পূর্বপুরুষ প্রথম বা দ্বিতীয় জর্জ ইংরেজ ছিলেন না । তাহারা জৰ্ম্মান । তৃতীয় উইলিয়ম ওলনাজ ছিলেন। বোনাপার্ট কপি কায় ইতালীয় ছিলেন। স্পেনের ভূতপূৰ্ব্ব প্রাচীন বুর্বে বংশীয় রাজার ফরাশী ছিলেন। রোম সাম্রাজ্যের সিংহাসনে অনেক বৰ্ব্বর জাতীয় সম্রাট আরোহণ করিয়াছিলেন । এইরূপ শত শত ঘটনার উল্লেখ করা যাইভে পারে। দেখা যাইতেছে এই সকল রাজ্যে তত্তদবস্থায় রাজা ভিন্নজাতীয় ছিলেন। ঐ সকল রাজ্য তত্তৎকালে পরাধীন বা পরতন্ত্র ছিল, বলা যাইতে পারে কি না? কেহুই বলবেন না, যে বলা যাইতে