প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:প্রহাসিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৩৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্রন্থপরিচয় কবিতার সংকলন সময়ে বড়দাদামহাশয় দ্বিজেন্দ্রনাথের যে কবিতার উত্তরে ইহার উদ্ভব সেটি যেমন সর্বাগ্রে বিষ্ঠন্ত হয়, সব শেষে থাকে ইহার প্রত্যুত্তরে পুনশ্চ তিনি যাহা বলেন । অতঃপর বিশ্বভারতী পত্রিকার সম্পাদক জানাইয়া দেন - 2, সত্যপ্রসাদ গঙ্গোপাধ্যায়ের কন্যা শ্ৰীমতী শাস্তা বড়োদাদুর নিকট হইতে কবিতায় চিঠি পাইয়া বিপন্ন হওয়ায় ছোটোদাদু রবীন্দ্রনাথের শরণ লইয়াছিলেন– এ কবিতা তাহারই রচনা । দ্বিজেন্দ্রনাথের প্রথম কবিতা-পত্রী প্রসঙ্গাচুরোধে এ স্থলে সংকলন করা যাইতেছে— লাতিনীর নিকট হইতে সালগম উপহার পাইয়া দাদামহাশয়ের পত্র সালগম পাইয়া আমি ইর্ষে আটখানা, গান করিলাম শুরু তোম তানা নানা ; পাইতাম যদি কাছে গাউন-পরা বুড়ি ওয়ালঙ্গ-নাচ নাচিতাম মিলাইয়া জুড়ি । শাস্তা তুমি কান্ত হও যোগ্য রতনের, তা হলেই খেদ মেটে আমার মনের । দিলেন মটন-রোস্ট এসপি-জি বাবাজি’ , চারি ধারে সালগম দাড়াইল সাজি ; অঁাটিচু দু পাটি দাত না করি বিলম্ব, করিমু তাহার পরে কার্য আরম্ভ ; সালগমে মটনে দেহে সোহাগে গলিয়া মুহূর্তমাঝরে গেল কোথায় চলিয়া । কোথায় চলিয়া হায় কোথায় চলিয়া— পেটের কথা পেটেই থাক, কী হবে বলিয়া । —দদামহাশয় -- سیاه -- ১১ ভারতীর ভাদ্র সংখ্যা হইতে জানাযায় না । ১২ শাস্তার পিতা সত্যপ্রসাদ গঙ্গোপাধ্যায়, দ্বিজেন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথের ভাগিনেয় । ) రిచి