প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:প্রহাসিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্ৰহাসিনী ১৯ । কবিতা-প্রকাশ-কালে বঙ্গলক্ষ্মী পত্রিকার সম্পাদকীয় মস্তব্যে জানঃ যায় : প্রায় ২৫ বছর আগে... দিনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোট বোন. নলিনী দেবী রহস্যছলে পয়লা এপ্রিলে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথকে একটি কবিতা লিখে পাঠান— থামে ভরে কতকগুলি সুগন্ধ ঝুরো ফুল-সহ । নলিনী দেবীর কবিতা ও কবির উত্তর • • • উপহার দিচ্ছি। —বঙ্গলক্ষ্মী। ১৩৪৫ চৈত্র, পৃ. ২ser নলিনী দেবীর মূল-কবিতাটি এ স্থলে সংকলন করা গেল— পয়ল এপ্রিলে দাদামহাশয়গণ বড়ো সুচতুর, কানায় কানায় বুদ্ধি আছে ভরপুর, চিরদিন এই কথা আসিয়াছি শুনি— বুঝিয়া লইব আজি কত বড়ো গুণী । বচনের ফাস শুধু বিপাকের হেতু, তরিতে পারিলে বুঝি দুর্বিপাক-সেতু । – তত্ৰৈব ২৪। শ্ৰীমতী পারুলদেবীকে পত্রাকারে লিখিত। কবিতার শেষ স্তবক পূর্বে পাঠানো হয় নাই। পরে অর্থাৎ ৫ জুন ১৯৩৫ তারিখে ( ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৩৪২ ) তারিখে রবীন্দ্রনাথ এরূপ একটি ভূমিকা ফাদিয়া পাঠাইয়া দেন— আমি আশা করেছিলুম যে, তুমি আমার উপর খুব রাগ করবে, কেননা রাগটা সকল ক্ষেত্রে মন্দ জিনিস নয়— না রাগ করা ঔদাসীন্তের লক্ষণ । তোমাকে রাগাব ব’লেই কবিতাটির শেষ দুটো শ্লোক তোমাকে পাঠাই নি— উদ্দেশু সিদ্ধ৷ হয়েছে, অতএব এখন পাঠাই। কবিতার প্রথম অংশের সঙ্গে জুড়ে নিয়ে পাঠ কোরো । o —বিশ্বভারতী পত্রিক । পৌষ ১৩৪৯ 》○8