পাতা:ফিরিঙ্গি-বণিক্.djvu/৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


tR ফিরিঙ্গি বণিক এই শেষ সীমা অতিক্রম করিয়া, জলপথে ভারতবর্ষে উপনীত হইবার আশায় ১২৯১ খৃষ্টাব্দে একদল জেনোয়া-নিবাসী সাহসী নাবিক সমুদ্রযাত্ৰা করিয়াছিল । তাহারা আর স্বদেশে প্ৰত্যাবৰ্ত্তন করিতে পারে নাই। তাহাদের সাহস বাতুলতা বলিয়া পরিচিত হইয়াছিল,—তাহা ইউরোপের কাব্যে ইতিহাসে অতিসাহস বলিয়াই নিন্দিত হইয়াছিল ! হেনরী সেই পথেই পোত প্রেরণ করিতে কৃতসংকল্প হইয়াছিলেন। তিনি বুঝিয়াছিলেন,-প্রচলিত জনশ্রুতির অলীকত্ব সংস্থাপিত করিতে না। পারিলে, ভারত যাত্ৰা সফল হইবে না,-- নাবিকগণ সাহস করিয়া অকুল সমুদ্রে অগ্রসর হইবে না। পঞ্চদশ শতাব্দীর মধ্যভাগে হেনরীর সুশিক্ষিত নাবিকগণ “বোজাডর অন্তরীপ” অতিক্রম করিয়া স্বদেশে প্রত্যাবৃত্ত হইলে খৃষ্টান সমাজের ভ্ৰান্ত সংস্কার দূরীভূত হইয়া গেল। বিষুৱ-রেখার নিকটবৰ্ত্তী হইলে যে ভস্মসাৎ হইবার আশঙ্কা নাই, সে কথা জনসমাজে ব্যাপ্ত হইয়া পড়িল । হেনরীর দীর্ঘ সাধনা সিদ্ধিলাভ করিল। ক্ৰমে দক্ষিণাভিমুখে অগ্রসর হইতে পারিলেই যে ভারতবর্ষের পথ আবিষ্কৃত হইবে, তাহাতে কাহারও সংশয় রহিল না । কিন্তু এই কাৰ্য্য সুসম্পন্ন করিতে যত সময় অপেক্ষা করিবার প্রয়োজন, তত সময় সন্ন্যাসীর নশ্বর দেহ ধরাধামে রহিল না । তাহার তিরোভাবে সমগ্ৰ ইউরোপ হাহাকার করিয়া উঠিল । পুণ্যাশ্রমের সাগর-সৈকতের দুৰ্গদ্বারে হেনরীর অসাধারণ আত্মত্যাগের স্মৃতিচিহ্নস্বরূপ এক অত্যুন্নত জয়স্তম্ভ। এখনও মহাসাগর-কল্লোলে স্তম্বমান হইয়া সন্ন্যাসীর সম্মান রক্ষা করিতেছে । তাহার ফলক-লিপিতে ১৪৬০ খৃষ্টাব্দ হেনরীর তিরোভাবকাল বলিয়া উল্লিখিত । * YS S LLS BBBD DDBDSDYDDLDD BDBB DBDSKBBDD BDD DDD S S DDD উল্লেখ না করিয়া স্মৃতিস্তস্তে উল্লিখিত খৃষ্টাব্দকেই হেনূরীর তিরোভাবকাল বলিয়া গ্ৰহণ করা যাইতে পারে {