পাতা:বত্রিশ সিংহাসন - নীলমণি বসাক.pdf/১৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

অষ্টাবিংশ পুত্তলিকা।

১৮৯

রাজ্য স্থির থাকে, তোমার প্রতাপ ও প্রভাব বৃদ্ধি হয় এবং জগন্মলে চিরস্থায়িনী কীর্তি থাকে তাহা কর। এই প্রকারে সে দিবস নিস্ফল গেল। রাজা অন্তঃপুরে গিয়া নানা চিন্তায় রজনী বঞ্চন করিলেন। পরদিবস প্রত্যুষে পুনর্বার সিংহাসনের নিকটে আসিলে,

মনোমোহিনী অষ্টাবিংশ পুত্তলিকা

কহিল, হে ভোজরাজ, তুমি বলিতে পার, রাজা বিক্রমাদিত্যের তুল্য বলবান, সাহসী ও জ্ঞানী মনুষ্য এই পৃথিবীতে আর কেহ জন্মিয়াছিলেন কি না। বোধ হয়, কেহই জন্মগ্রহণ করেন নাই। হে ভোজরাজ আমার বাক্য অপ্রকৃত জ্ঞান করিওনা। এক্ষণে আমি যাহা কহিতেছি শ্রবণ কর।

 এক দিবস আমি রাজা বিক্রমাদিত্যকে পরিহাসস্থলে কহিলাম, হে স্বামিন, পাতালেশ্বর বলিরাজা অতি বড় রাজা, তুমি তাহার সঙ্গীর তুল্যও নহ। অতএব যদি তোমার রাজ্য নির্বিঘে চলে, তাহা হইলে একবার তাহাকে দর্শন করিয়া আইস। এই কথা শুনিয়া রাজা বিক্রমাদিত্য বেতাকে আজ্ঞা করিলেন আমাকে পাতালপুরে লইয়া চল। বেতাল আজ্ঞমিত্র রাজাকে পাতালপুরে লইয়া উপস্থিত করিল। রাজা পাতাল পুরে উপস্থিত হইয়া পাতালপুরীর শোভা দর্শনে বিস্ময়পন্ন হইলেন, মনে মনে কহিতে লাগিলেন অদ্যাবধি আমি এমত চমৎকার নগর কুত্রাপি দর্শন করি নাই,