পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


"ty a শবদতত্ত্ব হইয়াছে দেখা যায়,—যথা—গাহিতে, চাহিতে, নাহিতে ও বাহিতে ( বহন করিতে ) ৷ হ আশ্রয় করিয়া যে ইকারগুলি অাছে তাহার বল অধিক দেখা যাইতেছে। ইহার অনুকূল অপর দৃষ্টান্ত আছে। করিতে চলিতে প্রভৃতি শব্দে ইকার লোপ হইয়া করতে চলতে হয় ; হইতে শব্দের ইকার লোপ হইয়া হতে এবং লইতে শব্দের ইকার স্থানভ্রষ্ট হইয়। নিতে হয় । কিন্তু বহিতে, সহিতে, কহিতে শব্দের ইকার বইতে, সইতে, কইতে শব্দের মধ্যে টিকিয়া যায়। অথচ সমস্ত বর্ণমালায় হ ব্যতীত আর কোনে অক্ষরের এরূপ ক্ষমতা নাই । লইতে শব্দ লভিতে শব্দ হইতে উৎপন্ন ; ভ হয়ে পরিণত হইয়। লহিতে হয়। তদুৎপন্ন “নিতে” শব্দে ইকার যদিচ স্থানচ্যুত হইয়াছে তথাপি হয়ের জোরে টিকিয়া গেছে। বীম্‌স তাহার উল্লিখিত নিয়মে একটা কথা বলেন নাই । তাহার নিয়ম দুই অক্ষরের কথায় থাটে না । হাতি শব্দে কোনো পরিবর্তন হয় না, কিন্তু হাতিয়ার শব্দের বিকারে “হেতের” হয় । “আসি” শব্দ ঠিক থাকে, “আসিয়া” হয় আস্তা, পরে হয় এসে । খাই শব্দে পরিবর্তন হয় না, খাইয়া হয় খায়্যা, পরে হয় খেয়ে । এইরূপে হঁাড়িশাল হইতে হয় হেঁশেল । এস্থলে এই নিয়মের চূড়ান্ত পৰ্য্যালোচনা হইল না, আমরা কেবল পাঠকদের মনোযোগ আকর্ষণ করিলাম । এ স্বরবর্ণ কোথাও বা ইংরেজি come শব্দস্থিত a স্বরের মতো, কোথাও ব| lack শব্দের a-র মতো উচ্চারিত হয় বীমস্ তাহাও