পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা বহুবচন 3> শব্দই সম্বন্ধবাচক—এবং সম্বন্ধের বিভক্তি দিয়াই বহুবচনৰূপ নিম্পন্ন হইয়াছে। আসামি ভাষায় ইহুতর শব্দের অর্থ ইহাদের, তঁহতর তোমাদের। ইহঁত-কের ইহাদিগের, তহত-কের তোমাদিগের, কানে বিসদৃশ বলিয়া ঠেকে না । কৰ্ম্মকারকেও আসামীই হঁতক বাংলা ইহঁদিগের সহিত সাদৃশ্ববান। এই ইত শব্দ রাজপুত হংদো শব্দের ন্যায় ভবন্ত বা সন্ত শব্দমুসারী তাহা মনে করিবার একটা কারণ আছে। আসামিতে ইওতা শব্দের অর্থ হওয়া । এস্থলে একথাও স্মরণ রাখা যাইতে পারে যে, পশ্চিমি হিন্দির মধ্যে রাজপুত ভাষাতেই সাধারণ প্রচলিত সম্বন্ধকারক বাংলার অনুরূপ ; “ঘোড়ার” শব্দের মাড়োয়ারি ও মেওয়ারি “ঘোড়ারো” বহুবচনে ঘোড়"রে । পাঞ্জাবি ভাষায় ষষ্ঠী বিভক্তি চিহ্ন দা । স্ত্রীলিঙ্গে দী। ঘোড়াদা ঘোড়ার। যন্ত্রদীবাণী = যন্ত্রের বাণী। প্রাচীন পাঞ্জাবিতে ছিল ডা। আমাদের দিগের শব্দের "দ" কে এই পাঞ্জাবি দম্নের সহিত এক করিয়া দেখা যাইতে পারে। ঘোড়াদা—কের = ঘোড়দিগের । বীম সাহেবের মতে পাঞ্জাবি এই “দা” শব্দ সংস্কৃত তন শব্দের অপভ্রংশ। তন শব্দের যোগে সংস্কৃত পুরাতন সনাতন প্রভৃতি শব্দের স্বষ্টি। প্রাকৃতেও ষষ্ঠীবিভক্তির পরে কের এবং তন উভয়ের ব্যবহার অাছে,—হেমচন্দ্রে আছে সম্বন্ধিনঃ কেরতণেী ।