পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/১৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


> obo শব্দতত্ত্ব লাগালাগি, লাঠালাঠি, লাথালাথি, লাফালাফি, সামনাসাম্নি, হাকাহাকি, হাটাহঁাটি, হাতাহাতি, হানাহানি, হারাহারি । ( হারাহারি ভাগ করা) খ্যাচাখে চি, খ্যাম্চাখেমুচি, ঘাষাৰ্ঘেষি, ঠ্যাসাঠেসি, ঠ্যালাঠেলি, ঠ্যাকাঠেকি, ঠ্যাঙাঠেঙি, দ্যাখাদেখি, ব্যাকাবেঁকি, হ্যাচকাহেঁচকি, ল্যাপালেপি । কিলোকিলি, পিঠেপিঠি, ( ভাইবোন )। খুনোখুনি, গু তোগুতি, ঘুষোযুষি, চুলোচুলি, ছুটোছুটি, ঝুলোকুলি, মুখোমুখি, স্বমুখোস্বমুখি । ■ টেপটিপি, পেটাপিটি, লেখালিখি, ছেড়াছিড়ি । কোণাকুণি, কোলাকুলি, কোস্তাকুস্তি, খোচাখুচি, খোজখুজি, খোলাখুলি, গোড়াগুড়ি, ঘোরাঘুরি, ছোড়াছড়ি, ছোওয়াছুয়ি, কোলাকুলি, ঠোকাঠেকি, ঠোক্রাঠকৃরি, দোলাদুলি, ঘোকাযুকি, রোগারুথি, লোফালুফি, শোকাণ্ড কি, দৌড়োদৌড়ি । এই শ্রেণীর জোড় কথা তৈরির নিয়মে দেখা যাইতেছে— প্রথমার্দ্ধের শেষে আ ও দ্বিতীয়াদ্ধের শেষে ই যোগ করিতে হয়। যেমন, ছাড়, ধাতুর উত্তরে একবার আ ও একবার ই যোগ করিয়া ছাড়াছাড়ি, বল ধাতুর উত্তরে অ! এবং ষ্ট যোগ করিয়া বলাবলি ইত্যাদি । কেবল ক্রিয়াপদের ধাতু নহে, বিশেষ শব্দের উত্তরেও এই নিয়ম খাটে, যেমন রাতারাতি, হাতাহাতি, মাঝামাঝি ইত্যাদি । কিন্তু যেখানে আদ্যক্ষরে ইকার উকার বা ঔকার আছে সেখানে