পাতা:বাংলা শব্দতত্ত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর -দ্বিতীয় সংস্করণ.pdf/২০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


>ぐりや শব্দতত্ত্ব পারে। এখানে “উপাদেয়” শব্দটা ব্যবহার করলুম ইন্টারেটিং শব্দের পরিবর্তে । এই জায়গাটাতে খাটুল কিন্তু সৰ্ব্বত্রই-ষে খাট্‌বে এমন আশা করা অন্যায় । “মানুষটি উপাদেয়” বললে ব্যাভ্ৰজাতির সম্পর্কে এবাক্যের সার্থকতা মনে আসতে পারে । এস্থলে ভাষায় বলি, লোকটি মজার, কিম্বা চমৎকার, কিম্বা দিব্যি। তাতেও অনেক সময়ে কুলোয় না, তখন নতুন শব্দ বানাবার দরকার হয় । বলি, বিষয়টি আকর্ষক, কিম্বা লোকটি আকর্ষক । “আগ্রহক’ শব্দও চালানো যেতে পারে। বলা বাহুল্য, নতুন তৈরি শব্দ নতুন নাগরা জুতোর মতোই কিছুদিন অস্বস্তি ঘটায় । মনোগ্রাহী শব্দও যথাযোগ্য স্থানে চলে—কিন্তু সাধারণত ইণ্টারেটিং বিশেষণের চেয়ে এ বিশেষণের মূল্য কিছু বেশি। কেননা, অনেক সময়ে ইণ্টারেষ্টিং শব্দ দিয়ে দাম চোকানো, পারা-মাখানো আধ-লা পয়সা দিয়ে বিদায় করার মতো । বাঙালির গান শুনে ইংরেজ যখন বলে, “হাউ ইণ্টারেষ্টিং” তখন উৎফুল্ল হয়ে ওঠা মূঢ়তা। যে-শব্দের এত ভিন্নরকমের দাম অন্য ভাষার ট্যাকশালে তার প্রতিশব্দ দাবি করা চলে না । সকল ভাষার মধ্যেই গৃহিণীপনা আছে। সব সময়ে প্রত্যেক শব্দ স্বনির্দিষ্ট একটিমাত্র অর্থ ই-যে বহন করে তা নয় । সুতরাং অন্য ভাষায় তার একটিমাত্র প্রতিশব্দ খাড়া করবার চেষ্টা বিপত্তিজনক। “ভরসা” শব্দের একটা ইংরেজি প্রতিশব্দ courage, আর একটা expectation । আবার কোনো কোনো জায়গায় দুটো অর্থ ই একত্র মেলে, যেমন—