পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১১০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


به لا ه لا আর বলব না মা, জীন দয়ামী খাম, অকলঙ্ক নামে কলঙ্ক রটিবে লোকে । নাই মোর ভক্তি ও ভজন যে ওচরণ করব সাধন, নিজ গুণে জাগ মাত দেখিগে রমণ ; দেখাও দাস মুকুন্দে, যুগল রাধা-গোবিন্দে, দয়ামী নামের ডঙ্কা বাজুক ত্রিলোকে ॥ ধাস্বাজ—মধ্যমান । রে মন চিন্তা কর কি ? সৰ্ব্ব চিন্তাময়ী চিন্তা, সে চিন্তা বই চিন্তা কি ৷ যে চিস্তায় সদ চিন্তে, ব্ৰহ্মাদি শিব মনেযন্ত্রে, না হলে তার চরণ চিন্তে, কৃষ্ণ চিন্তায় পায় কি। যে চিন্তার চরণfচন্তে, তার চিন্তা সে কি চিস্তে, যা চিন্তা চিন্তারই চিন্তে, তুমি তার চিন্তা কি ॥ শুন বলি ওমন ভ্রান্তে,চিস্তু চিস্তারূপী চিস্তে, স্থান পেলে তার চরণপ্রস্তে মুকুন্দ আর চার কি ॥ & বাউল-ফুলন। বড় সাধে মনের খেদে, ডাকি গো মা তোমায় তারা । অকূলে ভাসায়ে তরী, হয়েছি মাদিশেহারা। বলে তোর ভক্ত ধারা, ভয় নিবারিণী তারা। তাই তোরে ডাকি তারা, তার গো মা তার ত্বর একে মোর জীর্ণ তরী, তাহে মা নেই কাণ্ডারী। এ কাণ্ডারী বিহীন তরী, কেমনে পাড়ি দেবে তারা ॥ তাই বলি ওগো কাল, (দি) কাণ্ডারী মোর ধাকৃত ভাল। তবে মুকুন্দের দেহ-তরী, অকূলে কি যায় গো মারা । ভৈররী—ষৎ । বুঝিনাম খেলা তব, কখন খেল মা কিভাবে। নিয়ে সবে কত ভাবে, (খেলে) ভুলারে রেখেছ ভবে ॥ পিতা মাতা মুক্ত জায়, সৰ্ব্ব জীবে সম দয়া । (আছে) বেঁচে পেয়ে ওপদ-ছায়া, তবু মোহ মায়াভৰে । , गप्राको फूनिक,ckजह५ च्क शहै। বাঙ্গালীর গান। ছ'জন জুটে খেলে হাটে, (সব) নিচ্ছে লুটে এর কি হবে । যে ধন দিয়ে ছিলে বেচে, মুকুন্দ বসেছে বেঁচে। যৈছে নাচাও তৈছে নাচে, (বল) মা প্রেমে নাচাবে কবে ॥ इबिन्ख जि। (, . পুৰ্ব্ববাঙ্গালার একজন প্রসিদ্ধ কবি। প্রায় ২০ বৎসর হইল, ইহঁার স্বৰ্গলাভ হইয়াছে। ঢাকা নগরীতে ইহঁর বাসস্থান ছিল । “মিত্ৰপ্রকাশ’ নামক ইনি এক মাসিক পত্র প্রকাশ করিয়াছিলেন । गिल्ल३ि-म१;भनि ! কই উমা কই আমার কই উমা কই । , উমা উমা করে করে আমাতে আর আমি নাই শয়নে স্বপনে উমা, আলাপনে মনে উমা, জপমালা হ’ল উমা, ভাবি না আর উমা বই। ভেবে দুঃখিনী জননী, এল কি গণেশজননী, মুদিন কি হ’ল এমনি, পেলাম কি আনন্দময়ী। না করিয়া মিছে ছল, বল গো তোরা সত্য বল, মঙ্গলার সুমঙ্গল, আমার ত জপনা আই ॥ बझtभू-म९]मां ने ! থাক থাক থাক নয়নধারা, নয়ন ভরিয়ে একবার নিরর্থি নয়নতারা ॥ না হেরে যে উমাতারা, বহিছে শ্রাবণের ধারা, এল সেই নয়নতারা, এখন ধারা এ কি ধারা। নিরখিতে উমাধনে, বহুদিনের সাধ মনে, হেরিতে সে চন্দ্রাননে বাধা দেও এ কেমন ধারা। একে পলক বাধা চোকে, দেখতে দেয় না অনিমিখে, তুমি তাতে হলে বাণী,হেরি বল কেমন ধারা। umanisminis ললিত-একতাল। ওগো নিদ্রাদেবি, কেন বঞ্চন করিলে মোরে। মিলাইরে উমানে পুনৰেন দিলে হরে।