পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১৮৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিধুবাবু। |াহাড়ী-দিঝিট-ভেওলা । ঐ যায় সই, ডাকন উহরে, মোর প্রাণ যায়। নেতে বহুেছি কত, ফিরে নাহি চায় ॥ কনবা করিলাম মান, এখন যে যায় প্রাণ, রতন যতন বিনে, থাকে কি কোথায়ু ॥ ক{ল ড - জলদ- তেওtলা । জানি তুমি প্রণনিধি। (হে ) বিরস দেপিলে মুখ কতমত সাধি । সতত বাসন মোর, কখন হয়না অন্তর, অন্তরে হলে আস্তর, কেমনে প্রবেধি |

  • r

ঝিীিট—জলদ তেতালা । | বিধি দিলে যদি বিরহ-যাতন। প্রেম গেল কেন প্রাণ গেল না | ইইয়ে বহিয়ে গেছে, প্রেম রাইয়েছে, বহিল কেবল প্রেমেরি নিশান ।

  • }াম—জলদ তোতাল । কেমনে এলে আলিরজ, এলে ত্যজিয়ে কেতর্কিনী

হইবে অনেক সুখ, মনেতে বুঝিয়ে বুঝি প্রাণ, সঁপিলে তাহারে ওরে, রোদিত কমলিন সব ফুলে সমভাব, তোমার বিচারে যদি প্রাণ। বৃথায়ু নলিনী ভাবে, আপনি সেহাগিনী ॥ পিলিট—কাওয়ালী | তই কি মনে করে, মানভরে অভিমানে আছ । স্বালিয়ে বিরহানল, দাহন হতেছ। যে দুঃখে পীরিত হয়, সকলি কি মনে রয়, তাহলে কি বিচ্ছেদ হয় কার মুখে শুনেছ। க_. পূরবী—জম্বাদ তেঙাল ! নিশ অবসানে আসি, রসরাজ বিরস কেনে। আছি যতক্ষণ, হরিষ বদন, দেখিতে বাসনা মনে৷ সময়ে না এলে প্রাণ, অসময়ে আগমন তোমার কি দেয, অনেকের বশ, সহিল আমার প্রাণে ॥ | | | i | | | | } পূরবী—টিমে তেতাল।। চল সখি যাই যমুনাতীরে, ঘনবরণ বন উদয় মনেতে । না দেখি নয়ন, করিছে রোদন, কি করে এখন, লোক লাজেতে । অজ্ঞান-কলঙ্ক যার, দেখিলে কি থাকে তার, লোক-কলঙ্গেতে, কি করে তাহতে, মন যে সপিলে, সেই রূপেতে ॥ পূরবী-—টিমে তেতাল।। বনঘন ঘনবরণ ধ্যানে, মম মনের তম রহিল দূরেতে। আর মন্ত রপে, মজিব কিরূপে, মণ্ডে ছি স্বরূপে, সেই রূপেতে ॥ দেখিতে বরণ কাল অন্তর করয়ে আল, ঘূচাইয়ে ভ্রমে, কেহ ক্রমে ক্রমে, মজে তাৰ প্রেমে, পারে বুঝিতে ॥ পূরবী—জলদ-তে ভাল । কি মুখ পিরীতে শুন, প্রাণ সই, না হলে মিলন। সে জন আমারে, ন| হেরে যাহারে, সদত করি যতন ॥ তৃষিত চাতকী খেন, আশায়ে প্রাণ ধারণ, তেমতি তাহারে, ভাবি হে অস্তরে, তথাপি ন রাখে মান । கற்க ঝিঝিট-কাওয়ালী । পিরীতি তোমার সনে, রহিল মনে । কখন না পাসরিব, তোমায় জীবন মরণে ॥ কি জানি কি গুণে প্রাণ, বান্ধিয়াছ মম মন, থাকিবে যে চিরদিন, সঙ্গ রাখিব যতনে। পুরী- জলদ-ভেভাল । সেই দোহাগিনী লো, ঘরে প্রিয় সত্তও চাহে। দুঃখিত কখন, নহে সেই জন, না বিরহে দহে ॥ মদন দাহন তারে, করিতে নাহিক পারে, মুখের সাগরে, সদা হিরে, নাযাতন সহে৷