পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৭৫৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর । 曦 బ్రి ( হৃদয়ে) উথলে তরঙ্গ চরণ-পল্লশের তরে (তারা) চরণ-কিরণ লয়ে কড়াকড়ি করে। মেতেছে হৃদয় আমার ধৈর্য না মানে, তোমারে বেরিতে চায় নাচৈ সঘনে । (সখা) ঐ খানেতে থাক তুমি যেও ন চলে ( আজি ) হৃদয় সাগরের বধ ভাঙ্গি সবলে ! কোথা হতে আজি প্রেমের পবন ছুটেছে (আমার ) ছদয়ে তরঙ্গ কত নেচে উঠেছে। তুমি দাড়াও তুমি ধেয়ে ন— ( আমার ) হৃদয়ে তরঙ্গ,আজি উঠেছে। ஆர்._ রামকেলি—কুপিতাল । আমি দীন অতি দীন— কেমনে শুধিব নাথ নাথ হে তব করুণা ঋণ। তব স্নেহ শতধারে ডুবাইছে সংসারে, তাপিত হৃদি মাঝে ঝরিছে নিশি দিন । হৃদয়ে যা আছে, দিব তব কাছে ; তোমারি এ প্রেম দিব তোমারে— চিরদিন তব কাজে, রহিব জগত মাঝে জীবন করেছি তোমার চরণ-তলে লীন। মিশ্র-ঝাঁপতাল । একি সুগন্ধ-হিল্লোল বহিল— আজি প্রভাতে জগত মাতিল তায় । হৃদয়-মধুকর ধাইছে দিশি দিশি পাগল প্রায়, বরণ বরণ পুষ্পরাজি, হৃদয় খুলিয়াছে আজি, সেই সুরভি-মুধা করিছে পান, পূরিয়া প্রাণ, সে সুধা করিছে দান, সে সুধা আনিলে উথলি যায়। মহি শূী খাম্বাজ-ঠুংরি। চিরবন্ধু, চির নির্ভর, চির শাস্তি তুমি হে প্রভু। তুমি চিরমঙ্গল সখা হে (তোমার জগতে ) | চির সঙ্গী চির জীবনে। চির প্রীতি-সুধা-নিৰ্বর তুমি হে হৃদয়েশ, তব জয় সঙ্গীত ধ্বনিছে (তোমার জগতে ) চির দিবা চির রজনী। | | | | 烏7お○" কানড়া-চোঁতাল। জগতের তুমি রাঙ্গ, অসীম প্রতাপ, হৃদয়ের তুমি হৃদয় নাথ হৃদয় হরণ রূপ। নীলাম্বর জ্যোতিখচিত চরণ-প্রান্তে প্রসারিত, ফিরে সভয়ে নিয়ম পথে অনন্ত লোক । নিভূত হৃদয়মাঝে কিবা প্রসন্ন মুখচ্ছবি প্রেম পরিপূর্ণ মধুর ভাতি । ভকত হৃদয়ে তব করুণা রস সতত বহে, দীন জনে সতত কর অভয় দান ! গোঁড় মল্লার—কাওয়ালি । তোমার দেখা পাব বলে এসেছি যে সখী শুন প্রিয়তম হে, কোথা আছ লুকাইয়ে, তবে গোপন বিজন গৃহে লয়ে যাও দেহ গো সরায়ে তপন তারক, আবরণ সব দূর কর হে, মোচন কর তিমির, জগত আড়ালে থেক না বিরলে, ” লুকায়োনা আপনার মহিমা মাঝে, তোমার গৃহের দ্বার খুলে দাও। তোমারি মধুররূপে ভরেছে ভুবন; মুগ্ধ নয়ন মম পুলকিত মোহিত মন। তরুণ অরুণ নবীন ভাতি, পূর্ণিমা প্রসন্ন রাতি, রূপরাশি-বিকশিত-তনু কুসুম বন। তোমা পালে চাহি সকলে সুন্দর, রূপ হেরি আকুল অন্তর, তোমারে বেরিয়া ফিরে নিরস্তর তোমার প্রেম চাহি। উঠে সঙ্গীত তোমার পানে গগন পূর্ণ প্রেম গানে, তোমার চরণে করেছে বরণ নিখিল জন । সিন্ধু-কাফি -একতাল।। তবু পারিনে সঁপিতে প্রাণ । পলে-পলে মরি সেও ভাল, সহি পদে-পদে অপমান । কথার বঁধুনী কাদুনীর পালা, চোখে নাহি কারো নীর। আবেদন, আর নিবেদনের থালা ব'হে ৰ'হে নত শির।