পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৯২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রমথনাথ রায় চৌধুরী ৮৩৩ মালকোষ-~এনডালা । নম্নোষ্ট্ৰও নাগকূৰ্ম, ধর্ম বর্মরপ হে। শক্ষর করুণানিধান ভবঞ্চনা নাশ হে। i ভম্বধবলসবলাকায়, স্তবনিযুক্তমনিকায়, অসার-সংসারভার আর দেহে না সহে । গৌরীসহ এককাৰ, পৃষীকুর তপ হে। জটাজুটশিরস্ত্রাণ, চ£মৌলিশোভমান, তুমি দরিদ্রভীতিহর, পাপাচারে শূল ধর, সুরমুনিগণগীঃমান, মানসে বিলাস হে। ভব কৃপালু একবার ছেদ মোহপাশ হে। 5ন্ত্রশূৰ্য্যবহ্নিনেত্ৰ, নাগাজিনবৗতগাত্ৰ, তুমি অনাদি তুমি অনন্ত, ফলিগণকুতন্দ্র, ধ'রে ভীমবেশ হে। কে জানে তোমার অন্ত অম্বর কুতচিত্রচম্ন, তব হরহ কৰ্ম্মমৰ্ম্ম, | অনন্ত ন! পান অন্তঅন্তে হও প্রকাণ হে ॥ প্রমথনাথ রায় চৌধুরী। |d o ময়মনসিংহ-সন্তোষের জমীণার দ্রযুক্ত প্রমথনাথ রায় চৌধুরীকিশোর বয়সে বিপুল বিণের অধিকারী ইইয়াও, বিলাস-ব্যগনেব পারিপার্থিক প্রলোভন উপেক্ষা করিয়াবীণাপাণির সেবার জীবন বিনিয়োগ । করিয়াছেন,—এ দৃষ্টান্ত অনেকেরই অনুকরণীয়। ১২ ৭৯ সালের ফান্বন মাসে প্রমথনাথের জন্ম হয় । এশৈশবেই পিতৃবিয়োগ হওয়ার, জননীদেবীর অভিভাবকল্পেই ইনি প্রতিপালিত হন। আবাল্য সহিতা প্রতি ও গণিতে বিতৃষ্ণা-হে বিদ্যালয়ের পাঠ ইহার অরই হইয়াছিল। এখমে বাড়ীতে পতিতেব নিকট, মধ্যে দিনকয়েক বিদ্যালয়ের এবং শেষে প্রেসিডেন্সি কলেজের ভূতপূর্ব অধ্যাপক মনোমোহন ঘোষ ও হুইলার সাহেবের নিকট ইনি অধ্যয়ন করেন। বণিচন্দ্রের উপন্যাস পাঠে ইহার হয়ে স্বদেশ প্রেম জাগরক হয়। কিশোর বয়স হইতেই কবিতারচনার গৃহ। ২১ বৎসর বয়সের সময় ইহার প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয়। ‘পদ্ম",'গৌরাঙ্গ', “ডিকা' প্রভৃতি ই8ার কাব্যগ্রন্থগুলি সর্মত প্রশংসিত। সঙ্গীত রগায় ইহাৰ যশ:প্রভা সমুদীপ । রামপ্রসাদী যুর ইমন কলাণ—তেওড়। তুই মা মোদের জগত-আলো৷ | এসেছ তুমি এসেছ কমল-ভূষণে সালি, সুখে দুখে, হাসিমুখে, নন্দন হ'তে এনেছ ভরিক্স অমল কাঞ্চন সাজী। আঁধারে দীপ তুমিই জালে৷ } এ কি এ সহসা মুহ মুহু মুহ গাছে কোকিলা৷ মা ব'লে মা ডাকূলে তোরে, কুহু কুহু কুহ, নাচে সরসী, মূগরে মাজি । সায়াটি প্রাণ ওঠে ভ'রে, এলোকেশে ভালে মেঘমালা যেসেছি মা তোরেই ভালো , অঞ্চলে হাসে চঞ্চল, গোরেই ধেন বাসি ভালে স্বপনরঞ্জিত স্বরগ সঙ্গীত নপুরে এই কোলে মা পাই ঘদি ঠাই, উঠে বাজি’ বাজি জনম জনম কিছুই না চা অভ্র-উৎস আনন্দ-উচ্ছল, থাক না ওয়ের গেীরবধরণ, ফুটিগ উন্মুখ চিত্ত-উৎপল, ইলেমই বা আমৃত্যু কালো। এ কি উৎসব কুঙ্গে কুঞ্জে খাজি! পরের পোষাক খুলে ফেলে’ ফিলাম থরে থরের ছেলে, মিত্র বারোর~চিষে জেতালা। জাধির নীরে মোদের শিরে নমঃ বঙ্গ ভূমি গামাঙ্গিনী, আশীবধার গাজি ঢালো। যুগে যুগে জননী লোকপালিনী।