পাতা:বীথিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বীথিক তরুণ রৌদ্রে তপ্ত মাটির মৃদুশ্বাসে তুলসি-ঝোপের গন্ধটুকু ঢুকছে ঘরে । খাম-খেয়ালি একটা ভ্রমর আশে পাশে গুঞ্জরিয়া যায় উড়ে কোন বনান্তরে । পাঠশালা সে ফাকি দিয়ে পালিয়ে এড়ায়, শেখার মতো কোনো কিছুই হয়নি শেখা, তালে ছায়ায় ছন্দ তাহার খেলিয়ে বেড়ায় আলুথালু অবকাশের অবুঝ লেখ। সবুজ সোন৷ নীলের মায়। ঘিরল তাকে, শুকনে ঘাসের গন্ধ আসে জানলা ঘুরে, পাতার শবেদ জলের শব্দে পাখীর ডাকে প্রহরটি তার আঁকাজোক নানান স্তরে । সব নিয়ে যে দেখল তারে পায় সে দেখা, বিশ্বমাঝে ধূলার পরে তালজ্জিত, নইলে সে তো মেঠো পথে নারব এক শিথিলবেশে অনাদরে অসজ্জিত ॥ জ্যেষ্ঠ, ১৩৪২ চন্দননগর Φmm φί"πüΕπάπ"Φa μ.μπωπώubμφω 8b〜