পাতা:বুয়র ইতিহাস - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

সপ্তম পরিচ্ছেদ।

৪৩

বিস্তর সৈন্য প্রেরণ করেন। ঐ প্রদেশ প্রধান প্রধান বুয়রগণ যখন দেখিলেন, যে, এই ভয়ানক যুদ্ধে তাঁহাদিগের আর নিস্তার নাই, তখন তাঁহারা একত্র মিলিত হইয়া, ইংরাজ গভর্ণমেন্টের নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করিয়া, এক আবেদন করেন। ইংরাজ কর্ম্মচারিগণ এই মর্মে তাহার উত্তর প্রদান করেন, যে, যে পর্য্যন্ত তাহারা তাঁহাদিগের অস্ত্র শস্ত্র ইংরাজদিগকে প্রদান করিবেন না, সে পর্য্যন্ত তাঁহাদিগের উপর গভর্ণমেন্ট কোনরূপ অনুগ্রহ প্রকাশ করিবেন না।

 তাঁহাদিগকে ক্ষমা করা হইল, একথার উল্লেখ উহাতে না থাকিলেও, তাঁহারা এই বুঝিলেন যে, ইংরাজগণ তাঁহাদিগকে ক্ষমা করিয়াছেন। ইহার পরই ১১৩ জন বুয়র আসিয়া, তাঁহাদিগের অস্ত্রশস্ত্র ইংরাজদিগকে প্রদান করিয়া, ইংরাজ গবর্ণমেন্টের বশ্যতাস্বীকার করিলেন।

 যাঁহারা এইরূপে ইংরাজের বশ্যতাস্বীকার করিলেন, তাঁহারা ইংরাজের বন্দীরূপে পরিগণিত হইলেন; ইহাদিগের মধ্যস্থিত ৯৩ জনকে অর্থদণ্ড করিয়া ছাড়িয়া দেওয়া হয়; অবশিষ্ট ২০ জনকে বিচারার্থ কেপনগরে প্রেরণ করা হয়; যতদিবস তাঁহাদিগের বিচার শেষ না হয়, ততদিবস পর্য্যন্ত তাঁহারা কয়েদী রূপে সেইস্থানেই অতিবাহিত করেন। ইহার পর, আরও ৪২ জন আত্মসমর্পণ করেন; কিন্তু তাঁহাদিগকে ক্ষমা করা হয়।

 উহাদিগের ৭ জন দুর্দ্দান্ত নায়ক, সেই সময় ইংরাজদিগের অধিকার হইতে কাফির স্থানে (Kaffir-land) পলায়ন করেন, ও সেইস্থানের একজন দুর্দ্দান্ত রাজার অধীনে অনেক দিবস পর্য্যন্ত বাস করেন।