পাতা:মীরকাসিম - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/১১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


test facts Y DN) প্ৰভু ভক্তিতে বিশ্বাস করিতেন না বলিয়া, অনেক সময়ে সামান্য কারণে অনেকের প্রাণদণ্ড করিতেও ইতস্ততঃ করেন নাই। কিন্তু দেওয়ানী বা ফৌজদারী বিচার কাৰ্য্যে অথবা সেনাদল ও নবাব দরবারের শাসন কাৰ্য্যে অথবা পণ্ডিত সমাজের মৰ্য্যাদারীক্ষা-কাৰ্য্যে তিনি যেরূপ ন্যায় বিচারের দৃষ্টান্ত রাখিয়া গিয়াছেন, তাহাতে তঁহাকে তৎসময়ের আদর্শ নরপতি বলিলেও অত্যুক্তি হইবে না । তিনি সপ্তাহে দুই দিবস। যথারীতি BtBtD BBBDBD BBBBDBDS SDDDD SDBBD DBDDDS BuDS কাৰ্য্যের পৰ্য্যালোচনা করিতেন, স্বয়ং অর্থ প্ৰত্যার্থী ও তাহদের সাক্ষিগণের বাদানুবাদ শ্রবণ করিয়া বিচারকাৰ্য্য সম্পাদনা করিতেন । তাহার আমলে কোন রাজকৰ্ম্মচারী উৎকোচ গ্ৰহণ করিয়া ‘হঁ|”কে “না” করিয়া দিতে পারিতেন না । জমিদারদিগের উৎপীড়ন হইতে দুর্বল প্রজাদিগকে রক্ষা করা তাহার বিশেষ প্রিয়-কাৰ্য্য মধ্যে পরিগণিত হইয়াছিল। সিরাজদ্দৌলা বহু ব্যয়ে যে ইমামবাড়ী প্ৰস্তুত করিয়াছিলেন, তিনি তাহার গৃহসজ্জা বিক্রয় করিয়া দরিদ্রদিগকে বিতরণ করিয়া দিয়াছিলেন।” * মীর কাসিম সঙ্কল্প সাধনের জন্য নানা উপায়ে অর্থ সঞ্চয় করিয়া ছিলেন। সেই অর্থে ভোগ-বিলাসের পথ উন্মুক্ত না করিয়া শক্তিসংস্থাপনের জন্য আয়োজন করিতে লাগিলেন ;-মুঙ্গেরের পুরাতন কেল্লা সুসংস্কৃত করিয়া তথায় রাজধানী সংস্থাপিত করিলেন ; কৰ্ম্মকুশল দেশীয় শিল্পকার নিয়োগ করিয়া, গুলি গোলা বারুদ কামান ও বন্দুক প্ৰস্তুত করিতে আরম্ভ করিলেন ; এবং ইউরোপীয় প্ৰণালীতে সেনাশিক্ষার ব্যবস্থা করিয়া, সামরিক শক্তি সঞ্চায়ের সুব্যবস্থা করিলেন । সে কালের বাঙ্গালীর বাহুবলের অভাব ছিল না ; কিন্তু ইউরোপীয় প্ৰণালীর সমর-কৌশলের অভাব ছিল । মীর জাফর সিংহাসনারোহণ করিবার অল্পদিন পরে সেনাপতি ক্লাইবা তাহাকে সদলবলে নিমন্ত্রণ

  • Soot,- vol. II. p. 411.