পাতা:রাজসিংহ-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৬৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

দ্বাদশ পরিচ্ছেদ। €సి “ফুলের মালা পরাও সখি-আমি চিঁতারোহণে বাইতেছি ” প্রবলবেগে প্রবহমান চক্ষের জল, চক্ষুঃপ্রাস্তে ফেরৎ পাঠাইয়। নিৰ্ম্মল বলিল, “রস্কালঙ্কার পরাই সখি, তুমি উদয়পুৱেশ্বরী হইতে যাইতেছে।” চঞ্চল বলিল, “পরাও ! পরাও ! নিৰ্ম্মল ! কুৎসিত হইয়া কেন মরিব ? রাজার মেয়ে আমি ; রাজার মেয়ের মত সুন্দর হইয়া মরিব । সৌন্দর্ঘ্যের মত কোন রাজ্য ? রাজত্ব কি বিনা সৌন্দর্ঘ্যে "শোভা পায় ? পর ” নিৰ্ম্মল অলঙ্কার পরাইল, সে কুসুমিততরুবিনিন্দিত কাস্তি দেখিয়া । কাদিল। কিছু বলিল না। চঞ্চল তখন, নিৰ্ম্মলের গলা ধরিয়া কঁাদিল । 羈 চঞ্চল তার পর বলিল, “ ! আর তোমায় দেখিব না ? কেন বিধাতা এমন বিড়ম্বন করিলেন ! দেখ ক্ষুদ্র কাটাৰু গাছ যেখানে জন্মে সেইখানে থাকে ; আমি কেন রূপনগরে থাকিতে পাইলাম না !” - নিৰ্ম্মল বলিল, “জামায় আবার দেখিবে । তুমি যেখানে পাক ; আমার সঙ্গে আবার দেখা হইবে। আমার না দেখিলে তোমার মরা হইবে না ; তোমায় না দেখিলে আমার মরা হইবে না।” চঞ্চল। আমি দিল্লীর পথে মরিৰ । নিৰ্ম্মল। দিল্লীর পথে তবে আমাৰ দেখিবে। চঞ্চল। সে কি নিৰ্ম্মল ? কি প্রকারে তুমি যাইৰে ? নিৰ্ম্মল কিছু বলিল না। চঞ্চলের গলা ধরিয়া ফাদিল । চঞ্চলকুমারী বেশভূষা সমাপন করিয়াম্মহাদেবের দিরেগেলেন। নিত্যব্রত শিবপুজা ভক্তিভাবে করিলেন। পুজান্তে,