পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১৯৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Yసెరి লক্ষণ-সেন । SAMJE S SJSJJAASAASAASAA AAAA SAAAAA AAAA AAAAMMMAAASASASS নীরবে নতমুখে ত্রিলোচন সকল কথা শুনিতে লাগিলেন । র্তাহাকে নিরুত্তর দেখিয়া বিশ্বেশ্বর উত্তেজিত-কণ্ঠে কহিলেন,-- “আমাদের ধমনীতে কি মন্ত্রন্থের রক্ত প্রবাহিত হয় মা ! যে আমাদিগকে সৰ্ব্বস্বাস্তু পথের ভিখারী করিল, তাহার বিরুদ্ধে কি আমাদের একটুও প্রতিহিংসা-প্রবৃত্তি জাগ্রত হয় না! যে মাহুষ এ অত্যাচার সহ করিতে পারে, সে মাস্থ্য মানুষই নয়। আপনার যথাসৰ্ব্বস্ব রাজা লক্ষ্মণ-সেন লুণ্ঠন করিয়া লইয়াছেন ; আপনাকে পথের ভিখারী করিয়াছেন ; আপনার সহধৰ্ম্মির্ণ সেই লক্ষ্মীস্বরূপিণী – তাহার প্রতিও ঘোর অত্যচার করিয়াছেন। ইহাতেও কি আপনার দিয়ে একটুও উদ্দীপনার অনল প্রজ্বলিত হয় না !” ত্রিলোচন কিংকৰ্ত্তব্যবিমূঢ় হইয়৷ বিশ্বেশ্বরের মুখের দিকে চাহিয়া রহিলেন । বিশ্বেশ্বর পুনরায় জিজ্ঞাসা করিলেন,— “রাজা লক্ষ্মণ-সেনের সম্বন্ধে আপনি কি করিবেন, কিছু স্থির করিয়াছেন কি ? প্রতিজ্ঞার বিষয় মনে আছে কি ?” ত্ৰিলোচন বিক্ষিত হইয়া উত্তর করিলেন,—“তুমি কি বলিতেছ, কিছুই বুঝিতে পারিতেছি না।” বিশ্বেশ্বর উচ্চকণ্ঠে কহিলেন,-“প্রতিহিংসা-প্রতিহিংসা ! মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনের সর্বনাশ-সাধণের জন্য যে প্রতিজ্ঞ করিয়াছেন, সে প্রতিজ্ঞা-পালনের কি করিলেন ?" ত্রিলোচন যেন আকাশ হইতে পড়িলেন। "এ্যা-এT!-- প্রতিজ্ঞ!!” তন্দ্রাঘোরে ত্রিলোচন যে প্রতিজ্ঞা করিয়াছিলেন, তাহার মনের মধ্যে সে প্রতিজ্ঞার বিষয় একবার যেন বিদ্যুতের ন্যায় চমকিয়া উঠিল। -