পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১৯৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৯২ লক্ষণ-সেন । ASAMMAMAAA AAAA AAAAMMAMAMMMAAA AAAAA مہr w، یہ بہہ جمع বলবন্ত সিংহ --“আপনি ক্লান্ত পরিশ্রাত্ত ! আজি বিশ্রাম । করুন ; কাল প্রভাতে বজরা যেখানে উপনীত হইবে, কৰ্ম্মক্ষেত্র বিস্তৃত রছিয়াছে দেখিতে পাইবেন।” এই বলিয়া বলবন্ত সিংহ গাত্রোথনি করিলেন । তিনি প্রকোষ্ঠন্তিরে শয়ন করিতে গেলেন। ত্রিলোচন ও বিশ্বেশ্বর পাশ্বস্থ প্রকোষ্ঠে শয়ন করিলেন । দুই জনে দুই পাশ্বে দুই খট্রাঙ্গে শয়ন করিলেন। ত্রিলোচনকে হস্তগত করিতে পারিয়াছেন বুঝিয়া বিশ্বেশ্বরের আনন্দের অবধি রহিল না। কল্পনা-নেত্রে ভবিষ্যতের নানা সুখময় চিত্র দর্শন কৱিতে করিতে ক্ষণকার মধ্যেই বিশ্বেশ্বর নিদ্রিত হইয়। পড়িলেন। কিন্তু চিন্তার তরঙ্গে ত্রিলোচন উদ্বেলিত হইয়। উঠিলেন। গুইয়া গুইয়া ত্রিলোচন কত ভাবনাই ভাবিতে লাগিলেন । ভাবিলেন,—“মহতের আশ্ৰয় পাইয়াছি ; ভালই হইয়ছে। ইহঁদের কৃপায় হয় তো আমার দুঃখনিশার অবসান হইতে পারে।” তবে একৰার মনে হইল,—“কিন্তু কেন ইহার! আমাকে আদর-স্বত্ব করিতেছেন ? অামার দ্বারা ইহঁদের কি উদেখ সাধিত হইবে ? মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনের প্রতিই বা ইহঁদের এত বিরাগ-তীব কেন ?" পরিশেষে স্থির করিলেন,—“তাবিয়া আর কল কি ? অদৃষ্টে যাহা আছে, তাহাই ঘটবে। দেখা যাউক, প্রভাতেই বা কোন নূতন দৃপ্ত দেখিতে পাই।' 繼 秦 嫌