পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२8९ লক্ষণ-সেন ডাকিতেছেন,-“হে ভগবান ! এ বিপদে অামায় রক্ষা কর।” কয়েক দণ্ড পূৰ্ব্বে যিনি মরণের ক্রোড়ে আশ্রয় পাইবার জষ্ঠ ভগবানকে ডাকিয়াছিলেন, এখন আবার তিনিই মরণের বিভীষিকায় ব্যাকুল হইয়। ভগবানকে ডাকিতেছেন। ইহাই মামুষের প্রকৃতি। ~ যে আরণ্য-পথে যে বৃক্ষমূলে বসিয়া বীরসিংহ প্রাণ-সংশয়ে কাল কাটাইতেছিলেন ; সেই পথ দিয়া দুইটী পথিক কোথায় কোন কাৰ্য্যান্তরে চলিয়াছিলেন। পথিকদ্বয়ের এক ব্যক্তি একটা আলোক ধরিয়। অগ্রে অগ্ৰে চলিতেfছল ; অপর ব্যক্তি তাহার পশ্চাৎ পশ্চাৎ চলিয়াছিলেন। যে আলোকে তাহারা পথ চলিতেছিলেন, হঠাৎ দেখিলে, তাহা মশালের আলোক বলিয়া প্রতীত হইত। কিন্তু বাস্তব তাহী নহে। একটী কণ্ঠদণ্ডের অগ্রভাগে একখণ্ড প্রস্তর ছিল । তাহা হইতেই মশালের ন্যায় জ্যোতিঃ নিৰ্গত হইতেছিল। পথিকদ্বয় সে পথে গতিবিধি করিতে অত্যস্ত ছিলেন। সুতরাং পথ চলিতে র্তাহাদের মনে কোনরূপ আশঙ্কার উদয় হয় নাই । পথে চলিতে চলিতে র্তাহারা হঠাৎ বীরসিংহকে ঐরুপ জীবন্ত অবস্থায় দেখিতে পাইলেন। সেই রাত্রে, সেই বিজন অরণ্য-মধ্যে একাকী একটা মানুষকে বসিয়া থাকিতে দেখিয় পথিকদ্বয় বিক্ষিত ও আশ্চৰ্য্যাম্বিত হইলেন। আলোকবাহকের পশ্চাৎ পশ্চাৎ যিনি আসিতেছিলেন, তিনি জিজ্ঞাসা করিলেন,—"কে তুমি ? কে তুমি—একাকী এই বৃক্ষমূলে বসিয়া আছ ?” আতঙ্কে শিহরিয়া উঠিয়া, ভীতিবিহ্বল কণ্ঠে বীরসিংহ উত্তর ।