পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উপায়-নিৰ্দ্ধারণে । ২৬১ ত্ৰিলোচনের আতঙ্ক হইল । ত্রিলোচন কপিতে কঁাপিতে কহিলেন,-“আপনার বাক্যে অবহেল। করি নাই । আমি ভাবিয়া দেখিতেছি,—কি উপায় নিৰ্দ্ধারণ করা যায় !” বক্তিয়ার —“ভাবিয়। কিছু স্থির করিয়াছেন কি ?” ত্রিলোচন —“যদি অভয় দেন বলিতে পারি ” বক্তিয়ার সা হাসিতে হাসিতে কহিলেন,—“আপনি মিত্র – দেস্তি । আপনার যাহ। পরামর্শ, তাহ অবশ্য শ্রবণ করিব। আপনি নিসংঙ্কোচে বলিতে পারেন ।" ত্রিলোচন।–“নবদ্বীপ-রাজ্য অধিকার করা তো দূরের কথা। সে রাজ্যে প্রবেশ-লাভ করা ও সস্তব মহে । আমি মনে করি, আপনার পক্ষে সে কমন অসাধ্য-সাধম কামনা ." ব্যক্তিয়ার —“তবে কি নবদ্বীপ-রাজ্যে প্রবেশ করিবার কোনই উপায় নাই !” ত্ৰিলোচনের একবার মনে হই ল,—‘না, বলিব না ? আবার মনে হইল,—‘ন বলি।' তিনি শেষে মনে করিলেন –‘ন। বলিয়াই বা উপায় কি ?’ ত্ৰিলোচন কহিলেন,—“নবদ্বীপ-রাজ্যে প্রবেশের একটী মাত্র পথ আছে। সে পথ—মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনের অনুগ্রহ-প্রার্থনা।’ পথ আছে শুনিয়া বক্তিার একটু কৌতুহলাক্রান্ত হইয়া" ছিলেন। কিন্তু সে পথ মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনের অনুগ্রহের উপর নির্ভর করে গুনিয়া তিনি ক্রোধে জলিয়া উঠিলেন । কহিলেন,-- "কি !—কাফের শরণাপন্ন হইব ? এ কথা বলিতে আপনার সঙ্কোচ বোধ হইল না !" ত্রিলোচন কহিলেন,—“রাগ করিবেন না,—উতলা হইবেন