পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৩৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিযম সংবাদ । । \SY) এই বলিয়। দীর্ঘনিশ্বাস পরিত্যাগ পূৰ্ব্বক ব্রাহ্মণ শিরে করাঘাত করিলেন । মহারাজ কোনই কারণ নির্ণয় করিতে পারিলেন না ; কিন্তু রাজ-বয়স্ত মনে মনে একটু হাসিলেন ; প্রকাশ্বে কহিলেন,— “মহারাজ ! এই পণ্ডিতটা—হয় পাগল, নয় মূখ।” মহারাজ বয়স্যকে ক্ষান্ত হইবার জষ্ঠ অনুরোধ করিলেন ; কিন্তু বয়স্থ সে অনুরোধ না শুনিয়া উত্তর দিলেন,—“আমি যাহা বলিতেছি, তাই সত্য কি না, গুলরাপে বিচার করিয়া দেখুন ! আপনি বলিলেন,—আপনি প্রাণ দিয়াও উহার কষ্টের লাঘব করিতে প্রস্তুত আছেন ; কিন্তু প৪ি৩ঞ্জীর কষ্টের কথা কি, তাহা তে। তিনি বলিলেন না! আমায় যদি আপনি কখনও অমন । কথা কহিতেন, আমি নিশ্চয়ই আপনার সিংহাসন, সিংহাসন না হউক —রাজ্যের একটা অংশও, প্রথন করিয়া বসিতাম । কিন্তু এমনই মূখ পণ্ডিত—যে কিছুই চাহিতে পারিল না।” রাজবয়স্য আরও কত কি বলিবার চেষ্ট পাই তেছিলেন। তfষ্ঠ}র ইচ্ছ। হইতেছিল, শ্রীপর মিশ্রকে পাগল প্রতিপন্ন করিয়া মহারাজকে সেখান হইতে সরাইয়। লইয়। যা হবেন। কিন্তু মহারাজ সেদিকে আদেী দৃকপাত করিলেন না। তিনি বয়স্তকে ক্ষান্ত হইবার জন্য অনুরোধ করিয়া, পুনরায় ব্রাহ্মণকে জিজ্ঞাস করিলেন,—“আপনি শান্ত ইউন ; ক্ৰন্দন করিবেন না। আপনার যাহা বক্তব্য আছে, আমায় নিঃসঙ্কোচে বলুন । আমার রাজ্যে ব্রাহ্মণের মনঃকষ্ট । আমি প্রাণ পাকিতে তাহা সহ করিব না। আপনার মনঃকষ্ট্রের কারণ ঘেই হউক, আমি তাহার যথাযোগ্য দণ্ডবিধান করব ।”