প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (অষ্টম সম্ভার).djvu/১৯১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পণ্ডিত মশাই বাহিরে আসিতে কুস্কম কাছে আসিয়া দাড়াইল। আজকাল কোনো বিষয়েই দাদাকে সে অনুরোধ করে না, বাধাও দেয় না। আজ কি যে হইল, মৃদ্ধ-কণ্ঠে বলিয়া বসিল, এক্ষনি যাবে দাদা ? আমার রান্না শেষ হতে দেরি হবে না, ছুটে খেয়ে যাও না ? কুঞ্জ ঘাড় ফিরাইয়া মুখখানা বিকৃত করিয়া বলিল, যা ভেবেচি তাই। আমনি পেছু ডেকে বসলি ? দায়ে পড়িয়া কুসুম অনেক সহিতে শিখিয়াছিল, কিন্তু এই অকারণ মুখ-বিকৃতিতে তাহার সর্বাঙ্গে আগুন ধরিয়া গেল, সে পাণ্ট। মুখ-বিকৃত করিল না বটে, কিন্তু অতি কঠোর-স্বরে বলিল, তোমার ভয় নেই দাদা, তুমি মরবে না । না হলে, আজ পর্য্যন্ত যত পেছু ডেকেচি, মানুষ হলে মরে যেতে | আমি মানুষ নই ? না । কুকুর-বেড়ালও নও—তারা তোমার চেয়ে ভাল—এমন নেমকৃহারাম নয়, বলিয়াই দ্রুতপদে ঘরে ঢুকিয়া সশব্দে দ্বার রুদ্ধ করিয়া দিল। কুর মূঢ়ের মত কিছুক্ষণ দাড়াইয়া থাকিয় ধীরে ধীরে চলিয়া গেল । বাহিরের দরজা তেমনি খোলা পড়িয়া রহিল । সেই খোলা পথ দিয়া ঘণ্টাখানেক পরে বৃন্দাবন নিঃশব্দে প্রবেশ করিয়া আশ্চর্য্য হইয়া গেল । কুঙ্কর ঘর তালা-বন্ধ, কুস্কমের ঘর ভিতর হইতে বন্ধ—রান্নাঘর খোলা । মুখ বাড়াইতেই একটা কুকুর আহার পরিত্যাগ করিয়া ‘কেঁউ করিয়া লজ্জা ও আক্ষেপ জানাইয়া ছুটিয়া বাহির হইয়া গেল । কতক রান্না হইয়াছে, কতক বাকী আছে—উনান নিবিয়া গিয়াছে। চরণ চাকরের সঙ্গে ঠাটিয়া আসিতেছিল, সুতরাং কিছু পিছাইয়া পড়িয়াছিল, মিনিট-দশেক পরে স্ব-উচ্চ মাতৃ-সম্বোধনে পাড়ার লোককে নিজের আগমনবার্তা ঘোষণা করিয়া বাড়ি ঢুকিল। হঠাৎ ছেলের ডাকে কুষম দোর খুলিয়া বাহির হইতেই তাহার অশ্রকষায়িত দুই চোখের শান্ত বিপন্ন দৃষ্টি সৰ্ব্বাগ্রেই বৃন্দাবনের বিস্ময়-বিহবল জিজ্ঞাস্থ চোখের উপর গিয়া পড়িল । হঠাৎ ইনি আসিবেন, কুমুম তাহা আশাও করে নাই, কল্পনাও করে নাই। সে এক পা পিছাইয়া গিয়া আঁচলটা মাথায় তুলিয়া দিয়া, ঘরে ফিরিয়া গিয়া, একটা আসন আনিয়া পাতিয়া দিয়া উঠিয়া দাড়াইতেই চরণ ছুটিয়া আসিয়া জাহু জড়াইয়া ধরিল। তাহাকে কোলে লইয়া মুখ চুম্বন করিয়া কুষম একটা খুঁটির আড়ালে গিয়া मैंॉफ़ांझेल । চরণ মায়ের মুখেরদিকে চাহিয়া কাম-কাদ হইয়া বলিল, মা কাচে বাবা! বৃন্দাবন তাহা টের পাইয়াছিল। জিজ্ঞাসা করিল, ব্যাপার কি ? ডেকে չԵr ծ