প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/৩৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अनंब्र६-जांहिष्ठा-नर4ंह দিবাকর রুখিয়া উঠিল। ছয় মাস পূৰ্ব্বে তাহার অতি-বড় দু:স্বপ্নেও বোধ করি কল্পনা করা সম্ভবপর হুইত না যে, সে একটা অস্ত্যজ গণিকার মুখে এতখানি অপমানের পরেও কোমর বাধিয়া তুষ্ট-তোকারি করিয়া বিবাদ করিতেছে ! কিন্তু, সে ত আর উপেন্দ্র-স্বরবালার স্নেহে, শাসনে, লালিত-পালিত সে দিবাকর নাই ! তাই, সেও চোখ-মুখ রাঙা করিয়া গর্জাষ্টয়া উঠিল, কি ! আমাকে বোরো ? ভাড়া খাসনে তুই ? - বাড়িয়ালী ঠিক তেমনি গর্জন করিয়া কহিল, ইস্! ভাড়া দেনেবালা ! তোকে ছি ! তোর গলায় দেবার দড়ি জোটে না রে! বেরো বলচি, নটলে বাট মেরে দূর করব। - . আচ্ছা, বের করাচ্চি ! বলিয়া দিবাকর দাতে দাত ঘষিয়া উন্মত্তপ্রায় দ্রুতপদে ছুটিয়া আসিয়া নিৰ্ব্বাক্ কিরণময়ীকে সজোরে ধাক্কা মারিল । সমস্তদিন ক্ষুৎপিপাসায় ক্লন্থি, অবসন্ন কিরণময়ী সে ধাক্কা সামলাইতে পারিল না, প্রথমটা গিয়া সে একটা রঙের শূন্ত বালতির উপর পড়িয়া তথা হইতে গড়াইয়া একটা ঘটের ঝুড়ির উপরে মুখ গুজিয়া পড়িল । উন্মত্ত দিবাকর বলিল, যাও বেরোও । কে তোমার মারোয়াড়ী আছে,—দূর হও। বলিয়া ঘরের ভিতর গিয়া ঢুকিল । বাড়িয়ালী বিকট চীৎকার করিয়া উঠিল । কারখানা হইতে-সদ্যপ্রত্যাগত পুরুষের দল যে-যাহার হাত-মুখের কালিঝুলি প্রক্ষালিত করিতেছিল, চীৎকারে চকিত হইয়া হাতের সাবান ফেলিয়া চুটিয়া আসিল । বাড়িয়ালী সুউচ্চ নাকিৰূরে নালিশ করিতে লাগিল— বোঁটাকে মেরে ফেলেচে গো! হতভাগা ছোড়াটাকে তোমরা মায়তে মারতে দূর করে দাও—আর না আমার বাড়ি ঢোকে । বাড়িয়ালীর আদেশে তাহারা ভীড় করিয়া ঘরের মধ্য প্রবেশ করিবার উদ্যোগ করিতেই কিরণময়ী মাথায় জাচল তুলিয়া দিয়া উঠিয়া বসিয়া দৃঢ়ম্বরে কছিল, ঝগড়াকাটি কার ঘরে না হয় ? আমার গায়ে হাত দিয়েচে তা তোমাদের কি ? তোমরাঘরে যাও, বলিয়া তৎক্ষণাৎ উঠিয়া পড়িয়া নিজের ঘরের মধ্যে প্রবেশ করিয়া খিল বন্ধ করিয়া দিল । লোকগুলা বিক্রম-প্রকাশের স্থযোগ হারাইয়া ক্ষুঞ্জ-মনে ফিরিয়া গেল । বাড়িয়ালী বাহিরে দাড়াইয়া গালে হাত দিয়া শুধু বলিল, অবাক কাও! স্বার রুদ্ধ করিয়া কিরণময়ী দেশলাই বাহির করিয়া আলো জালিল । কাঠের ম্বর অপ্রশস্ত হইলেও দীর্ঘ, একধারে দড়ির খাটের উপর দিবাকরের শয্য, অপর প্রান্ডের কাঠের মেঝের উপর কিরণময়ীর বিছানাটি গুটান রহিয়াছে। পায়ের দিকে \!\9y