প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/৩৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্রহ আমার এ ভালবাসার তুলনা বুঝি তোমাদের স্বর্গেও নেই। কিন্তু সে গৰ্ব্ব টিকল না। সেদিন মহাভারতের গল্প নিয়ে সেই যে মেয়েটার কাছে হেরে এসেছিলুম, আবার তার কাছেই হার মানতে হ’লো—ভালবাসার স্বদ্বেও মাথা ছেট করে ফিরে এলুম। মোহের ঘোর কেটে স্পই দেখতে পেলুম, তাকে রূপ দিয়ে ভোলাতে পারি এ সাধ্য অামার নেই । - দিবাকরের একবার মনে হইল তাহার নিবিড় অন্ধকার বুঝি স্বচ্ছ হইয়৷ আসিতেছে । কিরণময়ী কহিতে লাগিল, সেই মেয়েটার কাছে একটা জিনিস শেখবার বড় লোভ হয়েছিল—লে আমার আপন স্বামীকে ভালবাসা-হয়ত শিখতেও পারতুম, কিন্তু এমনি পোড়া অদৃষ্ট, সে পণ ও দু'দিনে বন্ধ হয়ে গেল। ভাল কথা, কি জিজ্ঞাস। করছিলে ঠাকুরপো, তোমাকে ভালবাসিনি কেন ? কে বললে বাসিনি ? বেসেছিলুম বৈ কি ! কিন্তু বয়সে আমি বড়, তাই ধোদন তোমার উপীনদা আমার হাতে তোমাকে সঁপে দিয়ে যান, সেইদিন তোমাকে ছোট ভাইটির মত ভালবেসেছিলুম। তাই ত এই ছটা মাস নিজের ছলনায় আমি ক্ষত-বিক্ষত। তোমার চোখের ক্ষুধায়, তোমার মুখের প্রেম-নিবেদনে আমার সমস্ত দেহ ঘূণায় লজ্জায় কেমন করে শিউরে ওঠে, তা কি একটা দিনও বুঝতে পারনি ঠাকুরপে ? যাও, এবার তুমি সরে যাও । আমার পাপ-পুণ্য স্বৰ্গ-নরক না থাক, কিন্তু এই দেহটার ওপর তোমার লুব্ধ দৃষ্টি আর আমি সইতে পারিনে। বলিয়া সে বিছানাটা তুলিয়া আনিয়া দিবাকরের স্বমুখে ফেলিয়া দিয়। বলল, আর তোমাকে আমার বিশ্বাস হয় না। আমার আরও একটি ছোট তাই আজও বেঁচে আছে। সেই সতীশের মুখ চেয়েও আমার চিরদিন তোমার কাছ থেকে আত্মরক্ষা করতে হবে । তুমি যাও— দিবাকর আর দ্বিরুক্তি না করিয়া বিছানাটা তুলিয়। লইয়া বাহিরের অন্ধকারে নিষ্ক্রপ্ত হইয়া গেল । 8ම් সকালবেল কিরণময়ী শ্রান্ত অবসন্ন-দেহে কাজ করতেছিল; কামিনী বাড়িয়ালী আসিয়া দোরগোড়ায় দাড়াইয়া একগাল হাসিয়া কহিল, গেছে ছোড়া ? বালাই গেছে ! কাল আমারে যেন মারমুখী ! আয়ে, তোর কৰ্ম্ম মেয়েমান্থব রাখা ছাগলকে দিয়ে ঘৰ মাড়ানো গেলে লোকে আর গরু পুৰত না । °8越