প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/১৩১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পথের দাবী কখনও পায় নাই—তাহার এমনি মনে হইতে লাগিল । - সকালবেলায় তাহার ঘুম ভাঙিল ভারতীর ডাকে । চোখ মেলিয়া দেখিল সম্মুখে তাহার পায়ের কাছে দাড়াইয়া এই মেয়েটি, পূবের জানাল দিয়া প্রভাতসূর্ঘ্যের রাঙা আলো তাহার সদ্যস্নাত ভিজা চুলের উপরে, তাহার পরণের শাদা গরদের রাঙা পাড়টুকুর উপরে, তাহার স্বন্দর মুখখানির স্নিগ্ধ খাম রঙের উপরে পড়িয়া একেবারে যেন অপরূপ হইয়া অপূৰ্ব্বর চোখে ঠেকিল । ভারতী কুহিল, উঠন, আবার অফিসে যেতে হবে ত ! তা’তো হবেই বলিয়া অপুৰ্ব্ব শয্যা ত্যাগ করিল। আপনার ত দেখচি স্নান পৰ্য্যস্ত সারা হয়ে গেছে । ভারতী কহিল, আপনাকে ও সমস্ত তাড়াতাড়ি সেরে নিতে হবে । কাল অতিথিসংকারের যথেষ্ট ক্রটি হয়েচে, আজ আমাদের প্রেসিডেন্টের আদেশে আপনাকে ভাল করে না খাইয়ে কিছুতেই ছাড়া হবে না । অপূৰ্ব্ব জিজ্ঞাসা করিল, কালকের সেই মেয়েটি বেঁচেচে ? তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েচে—বাচবে বলেই আশা । মেয়েটিকে অপূৰ্ব্ব চোখেও দেখে নাই, তথাপি তাহারই মুখবরে মন যেন তাহার পরম লাভ বলিয়া গণ্য করিল। আজ কাহারও কোন অকল্যাণ সে যেন সহিতেই পরিবে না তাহার এমনি জ্ঞান হইল । সে স্নান-আহক সারিয়া কাপড় পরিয়া প্রস্তুত হইয়া যখন উপরে আসিল তখন বেলা প্রায় নয়ট । ইতিমধ্যে ঠাই করিয়া সরকার মশায় খাবার রাখিয়া গেছেন, অপূৰ্ব্ব আসনে বসিয়া জিজ্ঞাসা করিল, কই, আপনাদের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ত দেখা হ’ল না। তার অতিথি-সৎকারের বুঝি এই রীতি ? ভারতী বলিল, আপনার যাবার আগে দেখা হবে বই কি । তার আপনার সঙ্গে বোধ করি একটু কাজও আছে। অপূৰ্ব্ব কহিল, আর ডাক্তারবাৰু? যিনি আমাকে ডেকে এনেচেন ? এখনো বোধহয় তিনি বিছানাতেই পড়ে ? এই বলিয়া সে হাসিল । ভারতী এ হাসিতে যোগ দিল না, কহিল, বিছানায় পড়বার তার সময়ই হয়নি । এই ত হাসপাতাল থেকে ফিরে এলেন । শোওয়া না-শোওয়া কোনটার কোন মূল্যই তার কাছে নেই । অপূৰ্ব্ব আশ্চর্ঘ্য হইয়া প্রশ্ন করিল, এতে তার অস্কখ করে না ? ভারতী বলিল, কখনো দেখিনে ত । মুখ অস্বথ দুই-ই বোধহয় তার কাছে হার মেনে পালিয়েচে । মানুষের সঙ্গেই তার তুলনা হয় না । >等》 وه د حس «o لا