প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/১৫৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-লাহিত্য-সংগ্ৰহ ঠেলা-ঠেলি করিয়া পলাইবার চেষ্টা করিতেছে। এবং তাহাকেই দুইভাগে বিভক্ত করিয়া পিষিয়া মাড়াইয়া প্রকাও বড়-বড় ঘোড়ায় চড়িয় বিশ-পচিশজন গোরা পুলিশ কৰ্ম্মচারী দ্রুতবেগে অগ্রসর হইয়া আসিতেছে। তাহাদের একহাতে লাগাম এবং অন্যহাতে চাবুক,—কোমরবন্ধে পিস্তল ঝুলিতেছে । তাহাদের কাধের লোহার জাল ঝক ঝক করিতেছে এবং রাঙা মুখ ক্রোধে ও অস্তমান স্বর্ঘ্যকিরণে একেবারে সিদ্বরের মত লাল হইয়া উঠিয়াছে। যে ব্যক্তি বস্তৃতা দিতেছিল তাহার বজ্রকণ্ঠ হঠাৎ কখন নীরব হইল এবং মঞ্চ হইতে নীচের ভিড়ের মধ্যে চক্ষের পলকে সে যে কি করিয়া কোথায় অদৃপ্ত হইল জানা গেল না। সর্দার গোরা মঞ্চের ধার ঘেষিয়া আসিয়া কর্কশকণ্ঠে কহিল, মিটিং বন্ধ করিতে হুইবে । স্বমিত্রা এখনও আরোগ্য লাভ করিতে পারে নাই, তাহার উপবাস-ক্লিষ্ট মুখের 'পরে পাণ্ডুর ছায়া পড়িল, কিন্তু তৎক্ষণাৎ উঠয় দাড়াইয়া জিজ্ঞাসা করিল, কেন ? সে কহিল, হুকুম। কার হুকুম ? গভর্ণমেণ্টের । কিসের জন্ত ? স্ট্রাইক করার জন্য মজুরদের ক্ষ্যাপাইঃ তোলা নিষেধ । স্বমিত্রা বলিল, বৃথা ক্ষেপিয়ে দিয়ে তামাসা দেখবার আমাদের সময় নেই। ইউরোপ প্রভৃতি দেশের মত এদের দলবদ্ধ হওয়ায় প্রয়োজনীয়তা বুঝিয়ে দেওয়াই এই মিটিংএর উদ্দেশু । সাহেব চমকিয়া কহিল, দলবদ্ধ করা ? ফর্মের বিরুদ্ধে ? সে তো এদেশে ভয়ানক বে-আইনি। তাতে নিশ্চয় শান্তিভঙ্গ হতে পারে। স্থমিত্ৰা কহিল, নিশ্চয়, পারে বই কি ! যে দেশে গভর্ণমেণ্ট মানেই ইংরাজ ব্যবসায়ী এবং সমস্ত দেশের রক্ত শোষণের জন্যই যে দেশে এই বিরাট যন্ত্র খাড়া করা— বক্তব্য তাহার শেষ হইতে পাইল না, গোরার রক্ত-চক্ষু আগুন হইয়া উঠিল । ধমক দিয়া বলিল, দ্বিতীয়বার এ-কথা উচ্চারণ করলে আমি অ্যারেন্ট করতে বাধ্য হব। স্বমিত্রার আচরণে এতটুকু চাঞ্চল্য প্রকাশ পাইল না, শুধু ক্ষণকাল তাহার মুখের প্রতি একদৃষ্টি চাহিয়া মুচকিয়া একটু হাসিল । কহিল, সাহেব, আমি অস্বস্ব এবং অতিশয় দুৰ্ব্বল । না হলে শুধু দ্বিতীয়বার কেন, এ কথা একশবার চীৎকার করে এই লোকগুলিকে শুনিয়ে দিতাম। কিন্তু আজ আমার শক্তি নেই। এই বলিয়া সে আবার একটু হাসিল । A Bb