প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/১৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ ছেলেমানুষ ভাগিনেয় বাটতে থাকিত, পুলিশের লোক তাহদের বিধিমত কষামাজ ও নাড়াচাড়া দিল, কিন্তু কোন তথ্যই বাহির হইল না । বিজয় বিলাত-ফেরত। তাহার পুনঃ পুন: একজামিন ফেল করার রসদ যোগাইতে হরিহরকে অনেক টাকা গনিতে হইয়াছে। পাশ করিতে সে পারে নাই, কিন্তু বিজ্ঞতার ফলস্বরূপ মেজাজ গরম করিয়া বছর দুই পূৰ্ব্বে দেশে ফিরিয়াছে। বিজয় বলে, বিলাতে পাশ-ফেলের কোন প্রভেদ নাই। বই মুখস্থ করিয়া পাশ করিতে গাধাতেও পারে, সে উদ্দেশ্য থাকিলে সে এখানে বসিয়াই বই মুখস্থ করিত, য়ুরোপ যাইত না । বাড়ি আসিয়া সে পিতার কাঠের ব্যবসায়ের কাল্পনিক দুরবস্থায় শঙ্ক প্রকাশ করিল এবং নড়-বড়ে, পড়ো-পড়ে। কারবার ম্যানেজ করিতে আত্মনিয়োগ করিল। কৰ্ম্মচারী-মহলে ইতিমধ্যেই নাম হইয়াছে—কেরানীরা তাঁহাকে বাঘের মত ভয় করে। কাজের চাপে যখন নিশ্বাস ফেলিবার অবকাশ নাই এমনি সময়ে আসিয়া পৌছিল গণেশপুরের বিবরণ। সে কহিল, এ ত জানা কথা, বাবা যা করবেন তা এইরকম হতে বাধ্য । কিন্তু উপায় নাই, অবহেলা করিলে চলিবে না—তাহাকে সরেজমিনে নিজে গিয়া একটি বিহিত করিতে হইবে । এজন্যই তাহার গণেশপুরে আলা। কিন্তু এই ছোট কাজে বেশিদিন পল্লীগ্রামে থাকা চলে না, যত শীঘ্র সম্ভব একটা ব্যবস্থা করিয়। তাহাকে কলিকাতায় ফিরিতে হইবে । সমস্তই যে এক। তাহারি মাথায়। বড় ভাই অজয় এটর্নী । অত্যন্ত স্বার্থপর, নিজের অফিস ও স্ত্রী-পুত্রকে লইয়াই ব্যস্ত, সংসারের সকল বিষয়েই অন্ধ, শুধু ভাগাভাগির ব্যাপারে তাহার একজোড়া চক্ষু দশ-জোড়ার কাজ করে । স্ত্রী প্রভাময়ী কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট, বাড়ির লোকজনের সংবাদ লওয়া ত দূরের কথা, শ্বশুর-শাশুড়ী বাচিয়া আছে কি না খবর লইবারও সে বেশী অবকাশ পায় না । গোট পাঁচ-ছয় ঘর লইয়া বাটর যে অংশে তাহার মহল সেখানে পরিজনবর্গের গতিবিধি সঙ্কুচিত, তাহার বি-চাকর আলাদা—উড়ে বেহায়া আছে । শুধু বুড়ে কর্তার অত্যন্ত নিষেধ থাকায় আজও মুসলমান বাৰুচ্চি নিযুক্ত হইতে পারে নাই। এই অভাবটা প্রভাকে পীড়া দেয় । আশা আছে শ্বশুর মরিলেই ইহার প্রতিকার হইবে । দেবর বিজয়ের প্রতি তাহার চিরদিনই অবজ্ঞা, শুধু বিলাত হইতে প্রত্যাবর্তনের পরে মনোভাবের কিঞ্চিৎ পরিবর্তন দেখা দিয়াছে । দুই-চারিদিন নিমন্ত্ৰণ করিয়া নিজে রাধিয়া ডিনার খাওয়াইয়াছে, সেখানে ছোটবোন অনিতার সহিত বিজয়ের পরিচয় হইয়াছে। সে এবার বি. এ. পরীক্ষায় অনার্সে পাশ করিয়া এম. এ. পড়ার আয়োজন করিতেছে । అఱ