প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৫০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ প্রভৃতির হাতে দেবীর সমস্ত অস্থাবর সম্পত্তি বুঝিয়ে দিয়ে আমার গোমস্তার হাতে সিন্দুকের চাবি দেবে । এ-বিষয়ে তোমার কিছু বলবার আছে ? ষোড়শী। আমার বক্তব্যে আপনার কি কিছু প্রয়োজন আছে ? জীবানন্দ । না, নেই। তবে আজ সন্ধ্যার পরে এইখানেই একটা সভা হবে ? ইচ্ছে কর ত দশের সামনে তোমার দুঃখ জানাতে পার । ভাল কথা, শুনতে পেলাম আমার বিরুদ্ধে প্রজাদের না-কি তুমি বিদ্রোহী করে তোলবার চেষ্টা কয়চ ? ষোড়শী । তা জানিনে । তবে, আমার নিজের প্রজাদের আপনার উপদ্রব থেকে বঁচিবার চেষ্টা করচি । জীবানন্দ । ( অধর দংশন করিয়া) পারবে ? ষোড়শী | পারা না-পারা মা-চণ্ডীর হাতে । জীবানন্দ । তারা মরবে । ষোড়শী । মাকুম অমর নয় সে তারা জানে । [ ক্রোধে ও অপমানে সকলের চোখ-মুখ আরক্ত হইয়া উঠিল। এককড়ি এমন ভাৰ দেখাইতে লাগিল যে সে কষ্টে আপনাকে সংযত করিয়া রাখিয়াছে ] জীবানন্দ। (একমুহূৰ্ত্ত স্তন্ধ থাকিয় ) তোমার নিজের প্রজা আর কেউ নেই। তারা র্যার প্রজা তিনি নিজে দস্তখত করে দিয়েচেন । তাকে কেউ ঠেকাতে পারবে না | ষোড়শী । ( মুখ তুলিয়া) আপনার আর কোন হুকুম আছে ? নেই? তা হলে দয়া করে এইবার আমার কথাটা শুনুন । জীবানন্দ । বল । ষোড়শী। আজ দেবীর অস্থাবর সম্পত্তি বুঝিয়ে দেবার সময় আমার নেই, এবং সন্ধ্যায় মন্দিরের কোথা ও সভা-সমিতির স্থানও হবে না । এগুলো এখন বন্ধ রাখতে হবে । শিরোমণি । ( সহসা চীৎকার করিয়া ) কখনো না! কিছুতেই নয়! এ-সব চালাকি আমাদের কাছে খাটবে না বলে দিচ্ছি-- * [ জীবানন্দ ছাড়া সকলেই ইহার প্রতিধ্বনি করিয়া উঠিল । ] জনাৰ্দ্দন । ( উষ্মার সহিত ) তোমার সময় এবং মন্দিরের ভেতর জায়গা কেন হবে না শুনি ঠাকরুণ ? ষোড়শী। ( বিনীত-কণ্ঠে) আপনি ত জানেন রায়মশাই, এখন চড়কের উৎসব । যাত্রীর ভীড়, সন্ন্যাসীর ভীড়, আমারই বা সময় কোথায়, তাদেরই বা সরাই কোথায় ?