প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/২৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰন্থ রাখাল বলিল, সারদা, তোমার জীবনের মুখ-দুঃখের কথা নিয়েও ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করবো এতবড় পাষণ্ড আমি নই। অপ্রতিভ হইয়া সারদা বলিল, দেবতা তা নয়। আমার কি ষে ভালো লাগে আমি নিজেই তা বুঝতে পারি না। তবে এইটুকু বলতে পারি, নির্দিষ্ট সময় যন্ত্রের মতো ইস্কুলে গিয়ে পড়াশুনা, শিল্পকৰ্ম্ম বা ধাত্রীবিদ্যা শেখার চেয়ে, বাড়িতে ঘর-সংসারের কাজ করতে আমার অনেক ভালো লাগে। সংসারকে নিখুত শৃঙ্খলায় সাজিয়ে, গুছিয়ে পরিপাটি রাখতে আমার উৎসাহের অস্ত নেই। এজন্ত আমি সকাল থেকে রাত্রি পর্য্যন্ত অক্লান্ত পরিশ্রম করতে পারি। ছোট ছোট ছেলেমেয়ে আমার সবচেয়ে আনন্দের সামগ্ৰী। দেখেচেন তো নতুন-মার পুরোনো বাড়িতে থাকতে, ভাড়াটেদের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা আমার কাছেই থাকতো, খেলা করতো, ঘুমাতে, পড়াশুনা कुउछौं । অরক্ষণ থামিয়া দীর্ঘশ্বাস ফেলিয়া সারদা বলিল, নিজের হাতে আপনজনদের সেবা যত্ন করার মধ্যে যে কত তৃপ্তি, কত আনন্দ, তা মেয়েমানুষ ভিন্ন আর কেউ বুঝবে না। রাখাল ব্যথিত হইয়া বলিল, সারদা, তুমি নিজের সংসার বলতে কিছু পাওনি বলেই সংসারের দিকে তোমার এত আকর্ষণ । সারদা বলিল, হয়তো তাই হবে। সেই জন্তেই তো মিনতি করে বলচি দেবতা আপনি বিয়ে করুন, সংসারী হোন। আমি আপনার সংসার নিয়ে থাকবো । আপনাদের দুজনকে প্রাণ ঢেলে সেবা-যত্ন করব । নিজের হাতে এমন সুন্দর করে স্বল্প-সংসার সাজিয়ে-গুছিয়ে রাখবো, দেখবেন লোকে স্বখ্যাতি করে কি না । তারপর খোকা-খুকুদের মানুষ করার ভার পুরোপুরিই নেবো আমার হাতে। এই ষে সেলাই, বোন, শিশুপালন এত কষ্ট করে শিখচি, এ কি সত্যিই হাসপাতালে বা লোকের দোরে দোরে চাকরি করে বেড়াবো বলে ? তা মনেও করবেন না । রাখাল-বিস্ময়ে অভিভূত হইয়া সারদার কথাগুলি শুনিতেছিল। সারদা বলিতে লাগিল, ইস্কুলের এত কড়া নিয়ম আমার আদপেই বরদাস্ত হয় না । তবুও জোর করে শিখচি কেন জানেন ? সংসার করবো বলে। আমি আপনার বিয়ে দেবোই। নিজে মেয়ে পছন্দ করবো। সংসার পাতবো নিখুত করে । মানুষ করবো ছেলে-মেয়েদের—ভগবান না করুন—যদি সংসারে অভাব অনটন ঘটে, তার জন্স কারো কাছে গিয়ে হাত পাততে হবে না, নিজেই সেটুকু পূর্ণ করে নিতে পারবো । রাখাল বলিল, তুমি কি এই কল্পনা নিয়েই শিক্ষায় প্রবেশ করচে, সারদা ? * রাখালের মুখের পানে তাকাইয়া সারদ বলিল, আপনি থাকতে সত্যই কি জামি 象续姆