পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/২২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পল্পী-সমাঞ্জ তোলা চুলোয় যাক, প দিয়ে কেউ ছোবে না! সে নিকাল আর নেই বড়বাৰু, সে দিনকাল আর নেই। ছোটবাবু সব উন্টে দিয়ে গেছেন । গোবিন্দ কহিল, বামুনের কথা তা হলে রাখবিনে বল ? সনাতন মাথা নাড়িয়া বলিল, না। বললে তুমি রাগ করবে গাঙ্গুলীমশাই, কিন্তু সেদিন পিতৃপুরের নতুন ইস্কুল-ঘরে ছোটবাবু বলেছিলেন, গলায় গাছ-কতক স্বতে ঝোলানো থাকলেই বামুন হয় না। আমি ত আর আজকের নয় ঠাকুর, সব জানি। যা ক’রে তুমি বেড়াও সে কি বামুনের কাজ ? তোমাকেই জিজ্ঞাসা করচি দিদি ঠাকুরুন, তুমিই বল দেখি ? রমা নিরুত্তরে মাথা হেঁট করিল। সনাতন উৎসাহিত হইয়া মনেব আক্রোশ মিটাইয়া বলিতে লাগিল, বিশেষ করে ছোড়াদের দল। ছোটবাবুর জেল হওয়া থেকে এই দুটে৷ গায়ের যত ছোকরা সন্ধ্যের পর সবাই গিয়ে জোটে জাফর আলির বাড়িতে। তার ৩ চারিদিকে স্পষ্ট বলে বেড়াচ্চে, জমিদায় ত ছোটবাবু। আর সব চোর-ডাকাত। ত৷ ছাড়া খাজনা দিয়ে বাস করব—ভয় কারুকে করব না! আর বামুনের মত থাকে ত বামুন, না থাকে আমরাও যা তারাও তাই। বেণী আতঙ্কে পরিপূর্ণ হইয়া শুদ্ধমুখে প্রশ্ন করিল, সনাতন, আমার ওপরেই তাদের এড রাগ কেন বলতে পারিস্ ? সনাতন কহিল, রাগ করে না বড়বাবু, কিন্তু আপনি যে সকল নষ্টের গোড়া তা তাদের জানতে বাকী নেই। বেণী চুপ করিয়া বসিয়া রহিল। ছোটলোক সনাতনের মুখে এমন কথাটা শুনিয়াও সে স্লাগ করিল না, কারণ, রাগ করিবার মত মনের অবস্থা তাহার ছিল না—তাহার বুকের ভিতর চিপ, টিপ করিতেছিল। গোবিন্দ কহিল, তা হলে জাফরের বাড়িতেই আডড বল ? সেখানে তারা কি কবে বলতে পারিস ? সনাতন তাহার মুখপানে চাহিয়া কি যেন চিন্তা করিল। শেষে কহিল, কি করে জানিনে, কিন্তু ভাল চাও ত সে মতলব ক’রো না ঠাকুর । তারা হিন্দু-মুসলমান ভাই-সম্পর্ক পাতিয়েছে—এক মন, এক প্রাণ। ছোটবাবুর জেল হওয়া থেকে সব রাগে বারুদ হয়ে আছে, তার মধ্যে গিয়ে চকুমকি ঠুকে আগুন জালাতে যেও না ঠাকুর | সনাতন চলিয়া গেল, বহুক্ষণ পৰ্য্যস্ত কাহারও কথা কহিবার প্রবৃত্তি রহিল না। রম উঠিয়া যাইবার উপক্রম করিতে বেণী বলিয়া উঠিলেন, ব্যাপার শুনলে রমা ? রম মুচকিয়া হাসিল, কথা কছিল না। হাসি দেখিয়া বেণীর গা জলিয় গেল, কহিল, শালা ভৈরবের জন্তেই এত কাও। আর তুমি যদি না যাবে সেখানে, 戏为净