প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বিতীয় সম্ভার).djvu/২৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ বিরাজও কিছুক্ষণ স্থির হইয়া দঁড়াইয়া থাবিয়া বলিল, সেই ভাল, গজ-গুলি খেয়ে বোম-ভোলা হয়ে বসে থাকবার এই ত সময়, বলিয়া বাড়ির মধ্যে চলিয়া গেল। সেদিন গেল, তার পরদিন নীলাম্বর আর থাকিতে না পারিয়া সমস্ত লজ্জাসঙ্কোচ ত্যাগ করিয়া সকালবেল পীতাম্বরকে বাহিরের ঘরে ডাকিয়া আনিয়া বলিল, পুটির শ্বশুর তো একটা জবাব পৰ্য্যন্ত দিল না—তুই একবার চেষ্টা করে দেখ, না, যদি বোনটিকে খুটো দিনের তরেও আনতে পারিস। পীতাম্বর দাদার মুখপানে চাহিয়া বলিল, তুমি থাকতে আমি আবার কি চেষ্টা করব ? নীলাম্বর তাহার শঠতা বুঝিয় ভিতরে ভিতরে ক্রুদ্ধ হইল। কিন্তু সে ভাব যথাসাধ্য গোপন করিয়া বলিল, তা হোক, যেমন আমার, তোয়ও তো তেমনই বোন । না হয় মনে করুন, আমি মরে গেছি—এখন তুই শুধু একলা আছিস । পীতাম্বর বলি ল, যা সত্যি নয়, তা তোমার মত আমি মনে করতে পারিনে । আর তোমাকে চিঠির জবাব দিলে না, আমাকেই বা দেবে কেন ? নীলাম্বর ছোট ভাইয়ের এ কথাটাও সহ করিয়া লইয়া বলিল, যা সত্যি নয়, তাই আমি মনে করি ? আচ্ছা তাই ভাল, এ নিয়ে তোর সঙ্গে আমি ঝগড়া করতে চাই নে, কিন্তু আমার চিঠির জবাব দেয় না এই জন্যে যে, আমি বিয়ের সমস্ত শপ্ত পালন করতে পারিনি । কিন্তু সে সব কথার জন্যে তো তোকে ডাকিনি—যা বলচি, পারিস কি না, তাই বল। পীতাম্বর মাথা নাড়িয়া বলিল, নী, বিয়ের আগে আমাকে জিজ্ঞেস করেছিলে ? করলে কি হ’ত ? পীতাম্বর বলিল, ভাল পরামর্শই দিতুম | নীলাম্বরে মাথার মধ্যে আগুন জলিতে লাগিল, তাহার ওষ্ঠাধরও কঁাপিতে লাগিল, তবুও সে নিজেবে সংবরণ করিয়া লইয়া বলিল, তা হলে পারবিনে। পীতাম্বর বলিল, না। আর পুটির শ্বশুরও যা, নিজের শ্বশুরও তাই—এরা গুরুজন । তিনি যখন পাঠাতে ইচ্ছা করেন না, তখন তার বিরুদ্ধে আমি কথা কইতে পারিনে—ও স্বভাব আমার নয়। তাহার কথা শুনিয়া নীলাম্বরের একবার ইচ্ছা হইল, ছুটিয়া গিয়া লাথি মারিয়া উহার ঐ মুখ গুড়া করিয়া ফেলে, কিন্তু নিজেকে সামলাইয়া ফেলিয়া দাড়াইয়া উঠিয়া বলিল, যা, বেরো--যা আমার সামনে থেকে। পীতাম্বর ক্রুদ্ধ হইয়া উঠিল, বলিল, খামক রাগ কর কেন দাদা ? না গেলে তুমি কি আমাকে জোর করে তাড়াতে পার? নীলাম্বর দরজার দিকে হাত প্রসারিত করিয়া বলিল, বুড়ো বয়সে মার খেয়ে ৰদি না মরক্তে চাস, সরে যা আমার স্বমুখ থেকে! ኟፃU