প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/১৭৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


C e কমল আশ্চৰ্য্য হইয়া প্রশ্ন করিল, এখানে ? একলা ঐ খালি বাসায় ? হরেন্দ্র প্রথমে একটু ইতস্ততঃ করিল, পরে কহিল, বৌদির সমস্তাটা সত্যিই একটু কঠিন হয়ে উঠেছিল, কিন্তু ভগবান রক্ষে করেচেন, আগুবাবুর শুশ্ৰুষার জন্যে ঐখানে র্তাকে রেখে যাবার স্বযোগ হয়েচে । এই খবরটা এমনি খাপছাড়া যে কমল আর প্রশ্ন করিল না, শুধু বিস্তারিত বিবরণের আশায় জিজ্ঞাস্ক-মুখে চাহিয়া রহিল। হরেন্দ্রর দ্বিধা কাটিয়া গেল এবং বলিতে গিয়া কণ্ঠস্বরে গুঢ় ক্রোধের চিহ্ন প্রকাশ পাইল। কারণ, এই ব্যাপারে অবিনাশের সহিত তাহার সামান্ত একটু কলহের মতও হইয়াছিল। হরেন্দ্র কহিল, বিদেশে নিজের বাসায় যা ইচ্ছে করা যায়, কিন্তু তাই বলে বয়স্থ বিধবা শালী নিয়ে ত জাটুতুতে ভায়ের বাড়ি ওঠা যায় না। বললেন, হরেন, তুমিও ত আত্মীয়, তোমার বাসাতে কি—আমি জবাব দিলাম, প্রথমতঃ, আমি তোমারই আত্মীয়, তাও অত্যন্ত দূরের—কিন্তু তার কেউ নয়। দ্বিতীয়তঃ, ওটা আমার বাসা নয়, আমাদের আশ্রম ; ওখানে রাখবার বিধি নেই। তৃতীয়তঃ, সম্প্রতি ছেলেরা অন্যত্র গেছে, আমি একাকী আছি । শুনে সেজদার ভাবনার অবধি রইল না। আগ্রাতেও থাকা যায় না, লোক মরচে চারিদিকে, দাদার বাড়ি থেকে চিঠি এবং টেলিগ্রাফে ঘন ঘন তাগিদ আসচে—সেজদার সে কি বিপদ । কমল জিজ্ঞাসা করিল, কিন্তু নীলিমার বাপের বাড়িত আছে গুনেচি ? হরেন্দ্র মাথা নাড়িয়া বলিল, আছে । একটা বড় রকম শ্বশুরবাড়ীও আছে শুনেচি, কিন্তু সে-সকলের কোন উল্লেখই হ’ল না । হঠাৎ একদিন অদ্ভুত সমাধান হয়ে গেল। প্রস্তাব কোন পক্ষ থেকে উঠেছিল জানিনে, কিন্তু পীড়িত আপ্তবাবুর সেবার ভার নিলেন বৌদি। কমল চুপ করিয়া রহিল। হরেন্দ্র হাসিয়া বলিল, তবে আশা আছে বৌদির চাকরিটা যাবে না। র্তার ফিরে এলেই আবার গৃহিণীপণার সাবেক কাজে লেগে যেতে পারবেন। কমল এই শ্লেষেরও কোন উত্তর দিল না, তেমনই মৌন হইয়া রহিল । হরেক্স বলিতে লাগিল, আমি জানি, বৌদি সত্যিই সৎ চরিত্রের মেয়ে। সেজদার দারুণ দুৰ্দ্দিনে ছেড়ে যেতে পারেননি, এই থাকার জন্তই হয়ত ওদিকের সকল পথ বন্ধ হয়েচে । অথচ এদিকেরও দেখলাম বিপদের দিনে পথ খোলা নেই। তাই ভাবি, বিনা দোষেও এ-দেশের মেয়েরা কত বড় নিরুপায় । কমল তেমনি নিঃশব্দে বসিয়া রহিল, কিছুই বলিল না । ○やが> - الأخر لأ .۰ %خنسـa3t