প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (নবম সম্ভার).djvu/২৮০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎসাহিত্য-সংগ্ৰহ পরম্পরায় পাওয়া সংস্কার, কমল । এই তো যোগ । আসমুদ্র-হিমাচল অবিচলিত শ্রদ্ধায় এই তত্ত্ব বিশ্বাস করে। ভক্তি, বিশ্বাস ও ভাবের আবেগে তাহার দুই চক্ষু ছল ছল করিতে লাগিল৭ বাহিরের সর্ববিধ সাহেবিয়ানার নিভৃত তলদেশে যে দৃঢ়নিষ্ঠ বিশ্বাসপরায়ণ হিন্দু-চিত্ত নির্বাত-দীপশিখার স্থায় নিঃশব্দে জলিতেছে, কমল চক্ষের পলকে তাহাকে উপলব্ধি করিল। কি একটা বলিতে গেল, কিন্তু সঙ্কোচে বাধিল । সঙ্কোচ আর কিছুর জন্ত নয়, শুধু এই সত্যব্রত সংযতেন্দ্রিয় বৃদ্ধকে ব্যথা দিবার বেদন । কিন্তু উত্তর না পাইয়া তিনি নিজেই যখন প্রশ্ন করিলেন, কেমন কমল, এই কি সত্যি নয় ? তখন সে মাথা নাড়িয়া বলিয়া উঠিল, না আশুবাবু, সত্যি নয়। শুধু তো হিন্দুর নয়, এ বিশ্বাস সকল ধৰ্ম্মেই আছে। কিন্তু কেবলমাত্র বিশ্বাসের জোরেই তো কোন-কিছু কখনো সত্যি হয়ে ওঠে না । ত্যাগের জোরেও নয়, মৃত্যু-বরণ করার জোরেও নয়। অতি তুচ্ছ মতের অনৈক্যে বহু প্রাণ বহুবার সংসারে দেওয়া-নেওয়া হয়ে গেছে। তাদের জিদের জোরকেই সপ্রমাণ করেচে, চিন্তার সত্যকে প্রমাণিত করেনি। যোগ কাকে বলে আমি জানিনে, কিন্তু এ যদি নির্জনে বসে কেবল আত্ম-বিশ্লেষণ এবং আত্ম-চিন্তাই হয় তো এই কথাই জোর করে বলব যে, এই দুটো সিংহদ্বার দিয়ে সংসারে যত ভ্ৰম, যত মোহ ভিতরে প্রবেশ করেচে, এমন আর কোথাও দিয়ে না। ওরা অজ্ঞানের সহচর । শুনিয়া শুধু আশুবাবু নয়, হরেন্দ্রও বিস্ময় ও বেদনায নীরব হইয়া রহিল। সেই ছেলেটি পুনৰ্ব্বার আসিযা জানাইল, খাবার দেওয়া হইয়াছে.। সকলেই নীচে নামিয়া গেল । ՀԳe