প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (পঞ্চম সম্ভার).djvu/২২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ - গিরীন জিজ্ঞাসা করিল, তা হলে বলবে ত দিদি ? আচ্ছা, জিজ্ঞাসা করব। দিয়ে যদি তুই উপকার করতে পারিস, ভালই ত। বলিয়াই একটুখানি হাসিয়া বলিলেন, আচ্ছা তোরই বা চাড় কেন গিরীন ? চাড় আর কি দিদি, দুঃখে-কষ্টে পরস্পরের সাহায্য করতেই হয়, বলিয়া সে ঈষৎ সলঙ্গ-মুখে প্রস্থান করিল। স্বারের বাহিরে গিয়াই আবার ফিরিয়া আসিয়া বসিল । তাহার দিদি বলিলেন, আবার বসলি যে ? গিরীন হাসিমুখে বলিল, অত যে কাছুনি গাইলে দিদি, হয়ত সব সত্যি নয়। মনোরমা বিম্মিত হইয়া বলিলেন, কেন ? গিরীন বলিতে লাগিল, ওদের ললিতা যে রকম টাকা খরচ করে, সে ত দুঃখীর মত মোটেই নয় দিদি ! সেদিন আমরা থিয়েটার দেখতে গেলুম, ও নিজে গেল না, তৰু দশ টাকা ওর বোনকে দিয়ে পাঠিয়ে দিলে। চারুকে জিজ্ঞেস কর না, কি রকম খরচ করে ; মাসে কুড়ি-পঁচিশ টাকার কম ওর নিজের খরচই চলে না যে ! মনোরমা বিশ্বাস করিলেন না। চারু বলিল, সত্যি মা । ও-সব শেখরবাবুর টাকা, শুধু এখন নয়, ছেলেবেল থেকে সই ওর শেখরদার আলমারি খুলে টাকা নিয়ে আসে–কেউ কিছু বলে না। মনোরম মেয়ের দিকে চাহিয়া সন্দিগ্ধভাবে জিজ্ঞাসা করিলেন, টাকা আনে শেখরবাবু জানেন ? চারু মাথা নাড়িয়া বলিল, জানেন, স্বমুখেই চাবি খুলে নিয়ে আসে। গেল মাসে আন্নাকালীর পুতুলের বিয়েতে অত টাকা কে দিলে ? সবই ত সেই দিলে। মনোরমা ভাবিয়া বলিলেন, কি জানি । কিন্তু এ-কথাও ঠিক বটে, বুড়োর মত ছেলের অমন চামার নয়—ওরা সব মায়ের ধাত পেয়েছে—তাই দয়া-ধৰ্ম্ম আছে। তা ছাড়া, ললিতা মেয়েটি খুব ভাল, ছেলেবেলা থেকে কাছে কাছে থাকে, দাদা বলে ডাকে ; তাই ওকে মায়া-মমতাও সবাই করে। ই চারু, তুই ত যাওয়া-আসা করিস, ওদের শেখরের এই মাঘ মাসে না-কি বিয়ে হবে ? শুনেচি, বুড়ো অনেক টাকা পাবে। চারু বলিল, ই মা, এই মাঘ মাসেই হবে—সব ঠিক হয়ে গেছে। き?*