প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (পঞ্চম সম্ভার).djvu/২৯৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ কিছুদিন পরে কামাখ্যাবাবু সরলাকে একবার বাট লইয়া গেলেন, তাহার দুই-এক মাস পরে সত্যেন্দ্র একদিন রাগ করিয়া বলিয়াছিল, বইগুলোতে ছা তা ধরেচে, দোয়াতের কালি শুকিয়ে গেছে, এমন একজন নেই যে এগুলো দেখে ! কথাটা মা বুঝিলেন, হয়দেববাবুরও কানে গেল, তিনি হাসিয়া বোঁ আনিতে পাঠাইলেন ; লিখিলেন, আমার বাটতে বড় গোলযোগ উপস্থিত হইতেছে, মা ভিন্ন বোধ হয় থামিবে না । সুতরাং মাকে পাঠাইয়া দিবেন। আবার সরলা আসিল । সত্যর ছোট খাট কাজগুলি সে-ই করিত। বইগুলি ঝাড়িয়া মুছিয়া সাজাইয়া রাখা, কলেজের কাপড়-জামাগুলি ঠিক করিয়া রাখা, অর্থাৎ তাড়াতাড়িতে দুই হাতে দুই রকমের বোতাম, কিংবা আহার করিতে অত্যন্ত বিলম্ব হইয়া গিয়াছে, কলেজের এক ঘণ্টা যায় যায় সময়ে, এক পায় কাপেটের অপর পায় বানিস-করা জুতা সে না পরিয়া ফেলে, ফসর্ণ জামার উপর রজক-ভবনে শুভাগমনের জন্য প্রস্তুত চাদরের জুলুম না হয়, এইসব কাজগুলা সরলাই দেখিত, সরলা না থাকিলে এ-সব গণ্ডগোল তাহার প্রায়ই ঘটিত । এমন অন্যমনস্ক লোক কেহ কখনও দেখে নাই । এ-সকল কাজ সরল ভিন্ন অপর কাহারও দ্বারা হইতও না বটে, আর হইলেও সত্যেন্দ্রর পছন্দ হইত না বলিয়াও বটে, কাজগুলি সরলাই করিত। দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ সুশীলার ছেলের অন্নপ্রাশন স্বশীলা সরলায় বড়দিদি। তাহার ছেলের ভাত । সুতরাং কামাখ্যাবাবু দৌহিত্রের অন্নপ্রাশন-উপলক্ষ্যে সরলাকে বাট লইয়া যাইবার জন্ত কলিকাতায় আসিলেন । সরলার দিদি, সরলা ও সত্যেন্দ্রকে যাইবার জন্য বিশেষ অনুরোধ করিয়া পত্র লিথিয়াছে। বিশেষ, সরলা প্রায় তিন বৎসর যাবৎ দিলজানপুরে যায় নাই। সত্যেন্ত্রও যখন যাইতে সম্মত হইল, তখন কামাখ্যাবাবু পরমানন্দে জামাত-কন্যা লইয়া দেশে আসিলেন । গৃহিণী বহুদিবসের পর তাহাদিগকে পাইয়া অত্যন্ত আহ্নাদিত হইলেন। যাহার ছেলের ভাত; সে আসিয়া দুইজনকেই অনেক কথা শুনাইয়া দিল, অনেক রকমে আপ্যায়িত করিল। ३ॐ १