পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/১৬৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


राष्ट्रॉनि খামিদর্শন ঘটে নাই । চার দিনের দিন সে স্বামীকে পাইয়া স্বারে পিঠ দিয়া বলিল, এতদিন ছিলে কোথায় ? বাগানবাড়িতে । সেখানে কে আছে যে, তিনদিন ধরে পড়েছিলে ? তাইত— সব কথায় তাইত ! আমি সমস্ত শুনেছি। বলিতে বলিতে শাস্তি কাদিয়া ফেলিল —আমি কি দোষ করেছি, যে আমাকে পায়ে ঠেলছ ? কৈ তা ত আমি— আবার কি করে পায়ে ঠেলতে হয় ? এর চেয়ে অপমান আমাদের আর কি আছে ? তাইত—তা ওরা সব— শাস্তি যেন সে কথা শুনতে পাইল না। আরও কাদিয়া কহিল, তুমি স্বামী, আমার দেবতা। আমার ইহকাল । আমার পরকাল । আমি কি তোমাকে চিনিনে । আমি ত জানি, আমি তোমার কেউ নয়, একদিনের জন্যও তোমার মন পাই না। এ যাতনা তোমাকে বলব কি। পাছে তুমি লজ্জা পাও, পাছে তোমার ক্লেশ হয়, তাই কোন কথা বলি না । শাস্তি, কেন কঁাদ ? কেন কাদি। অন্তৰ্য্যামী জানেন। তাও বুঝতে পারি যে তুমি অযত্ন কর না— তোমারও মনে ক্লেশ আছে—তুমি আর কি করবে ? তাহার পর চক্ষু মুছিয়া বলিল, আমি আজীবন যাতনা পাই, তাতে ক্ষতি নাই, কিন্তু তোমার কি কষ্ট যদি জানতে পারি— স্বরেন্দ্রনাথ তাহাকে কাছে টানিয়া লইয়া স্বহস্তে তাহার চক্ষু মুছিয়া সস্নেহে কহিল, তা হ’লে কি কর, শাস্তি ? এ কথার কি আর উত্তর আছে ? শান্তি ফুলিয়া ফুলিয়া কাদিতে লাগিল । বন্ধক্ষণ পরে শাস্তি কহিল, তোমার শরীরও আজকাল ভাল নেই । আজ কেন, পাচ বছর থেকে নেই । যেদিন কলকাতায় গাড়িচাপা পড়েছিলাম, বুকে-পিঠে আঘাত পেয়ে একমাস শয্যায় পড়েছিলাম, সে অবধি শরীর ভাল নেই। সে ব্যথা কিছুতেই গেল না ; মাঝে মাঝে নিজেই আশ্চৰ্য্য হই, কেমন করে বেঁচে আছি । শাস্তি তাড়াতাড়ি স্বামীর বুকে হাত দিয়া বলিল, চল, দেশ ছেড়ে আমরা কলকাতায় ঘাই, সেখানে তাল ডাক্তার অাছে— । 20so ֆՃան 3