প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/১৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ চাটুষ্যে মহাশয় নিরতিশয় ক্রুদ্ধ হইয়া স্বয়ং আসিয়া বলিলেন যে, তাহা সমস্তই বিক্রয় হইয়া গিয়াছে, কিছু বা বন্দোবস্তে আছে। এই আট-দশ বছর ধরিয়া জমিদারের খাজনা না দিলে জমি-জায়গা কিরূপে থাকা সম্ভব ? মাধবী কহিল, জমির কিছু কি উপস্বত্ব হইত না যে, এই কয়ট টাকা খাজনা দেওয়া হয় নাই ? আর যদি যথার্থই বিক্রয় করা হইয়া থাকে, তাহা হইলে সে কে বিক্রয় করিয়াছে, এবং এখন কাহার নিকট আছে, সংবাদ পাইলে উদ্ধার করিবার চেষ্টা করা যায়। কাগজপত্রই বা কোথায় ? চাটুয্যে মহাশয় অবশু কিছু জবাব দিয়াছিলেন, কিন্তু মাধবী ভাহা বুঝিতে পারিল না। ব্রাহ্মণ বিড়বিড় করিয়া কত কি বকিলেন, তাহার পর ছাতা মাথায় দিয়া, মামাবলি কোমরে জড়াইয়া একখানা থান কাপড় গামছায় বাধিয়া লইয়া জমিদারবাবুর কাছারি ললিতা-গা অভিমুখে রওনা হইলেন । এই লীলতা-গ্রামে স্থ:রন্দ্রনাথের বাটী, এবং ম্যানেজার মথুরবাবুর কাছারি। ব্রাহ্মণ আট-দশ ক্রোশ হঁটিয়া একেবারে মথুরবাবুর নিকট উপস্থিত হইয়া কাদিয়া পড়িলেন- দোহাই বাব, গরীব ব্রাহ্মণকে বুঝি পথে পথে ভিক্ষা করে খেতে হয় । এমন ত অনেকে আসে । মথুরবাবু মুখ ফিরাইয়া বলিলেন, হয়েছে কি ? বাবা, রক্ষে কর । কি হয়েছে তোমার ? বিধু চাটুয্যে তখন মাধবী-দন্ত এ শত টাকা দক্ষিণ হাতে গুজিয়া দিয়া বলিলেন, আপনি ধৰ্ম্মাবতার, আপনি না রক্ষা কবৃলে আমার সর্বস্ব যায় ! অtছ, খুলে বল । গোলাগায়ের রামতন্তু সান্তালের বিধবা পুত্রবধু কোথা থেকে এতদিন পরে ফিরে এলে, আমার সমস্ত দখল করতে চায় । মথুরবাবু হাশিলেন -সে তোমার সমস্ত দখল করতে চায়, না, তুমি তার সর্বস্ব দখল করতে চাও—কোনটা ? ব্রাহ্মণ তখন হাতে পৈতা জডাইয়। ম্যানেজারের হাত চাপিয়।। ধরিলেন—আমি যে এই দশ বছর থেকে সরকারের খাজনা জুগিয়ে আসচি ? জমি ভোগ করচ, খাজনা দেবে না ? দোহাই আপনার – ভাবট মথুরবাবু বেশ বুঝিলেন–বিধবাকে ফাকি দিতে চাও ত। ব্রাহ্মণ নি:শঙ্গে চাহিয়া রহিল। কয় বিঘা জমি ? $o