প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৩৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ কেমন ক'রে বুঝব মামী, কিসে তোমাদের সর্বনাশ হ’ল। সৰ্ব্বনাশ সৰ্ব্বনাশই করছে, কিন্তু এখন পৰ্য্যস্ত একটা কথাও বলতে পারলে না । হরকালী আর একবার চোখ মুছিয়া বলিলেন, কিছুই জান না-বাবা ? नl । . তোমার খুড়োকে কাশী থেকে তোমাদের পাণ্ড চিঠি লিখেচে । কি লিখেচে ? হরকালী তখন ঢোক গিলিয়া মাথ। নাড়িয়া বলিলেন, বাবা, কাশীতে তোমাকে এক পেয়ে ডাকিনীরা ভুলিয়ে যে বেতার সঙ্গে বিয়ে দিয়ে দিয়েচে । চন্দ্রনাথ বিস্ফারিত চক্ষে প্রশ্নে করিল, কার গে! ? শিরে করতাড়না করিয়া হরকালী বলিলেন, তোমার। চন্দ্রনাথ কাছে সরিয়া আসিয়া ধীরভাবে জিজ্ঞাসা করিল, কার বেতার সঙ্গে বিয়ে হয়েচে ? অামার ? ई। । o তার মানে, বিয়ের পূৰ্ব্বে সরযু বেশ্যাবৃত্তি করত । মামীম, ওকে যে দশ বছরেরটি ঘরে এনেচি, সে কথা কি তোমার মনে নাই ? তা ঠিক জানিনে চন্দ্রনাথ, কিন্তু ওর মায়ের কাশীতে নাম আছে । তবে সরযুর মা বেস্তাবৃত্তি করত । ও নিজে নয় ? হরকালী মনে মনে উদ্বিগ্ন হইয়া বলিলেন, ও একই কথা বাবা, একই কথা । চন্দ্রনাথ ধমক দিয়া উঠিল, কাকে কি বলচ মামী ? তুমি কি পাগল হয়েছ ? ধমক খাইয়া হরকালী কুঁiদ-কঁাদ হইয়া বলিতে লাগিলেন, পাগল হবারই কথা যে বাবা | আমাণের দু'জনের প্রায়শ্চিত ক’রে দাও—তারপর ষেদিকে দু'চক্ষু যায়, আমরা চলে যাই । এর চেয়ে ভিক্ষে ক'রে খাওয়া ভাল । চন্দ্রনাথ রাগের মাথায় বলিল, সেই ভাল। তবে চলে যাই ? চন্দ্রনাধ মুখ ফিরিইয়া বলিল, যাও । তখন হরকালী আবার সশব্দে কপালে করাঘাত করিলেন, হা পোড়াঙ্কপাল ! শেষে এই অদৃষ্ট্রে ছিল । চন্দ্রনাথ মুখ ফিরাইয়া গম্ভীর হইয়া বলিল, তবু পরিষ্কার করে বলবে না ? সব ত বলেছি। কিছুহ বলনি-চিঠি কই ? তোমার কাকার কাছে ।