প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৪১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চন্দ্রনাথ লখীস্থার মা নিকটে ছিল, সে দয়াল-ঠাকুরকে ইসার। কবিয়। বাহিরে ডাকিয় বলিল, ঠাকুর, যাও, তুমি থাকলে সারাদিন এই কথাই বলবে। আরও চার-পাচ দিন কাটিয়া গেল। অবস্থা নেহাৎ মন্দ হইয়াছে, শম্ভু মিশির আজকাল রাত্রি-দিন থাকে, মাঝে মাঝে কবিরাজ আসিয়া দেখিয়া যায়। আজ সমস্ত দিন ধরিয়া সংজ্ঞা ছিল না ; সন্ধ্যার পর একটু জ্ঞান হইয়াছিল, তাহার পর অৰ্দ্ধ-চেতন, অৰ্ধ-অচেতনভাবে পড়িয়া ছিলেন। গভীর রাত্রে কথা কহিলেন, বিশু, দাদা আমার, মন্ত্রীট এবার দে, নইলে মাত হয়ে যাৰ ! শম্ভু মিশির কাছে আসিয়া বলিল, বাবুজী কি বলচে ? কৈলাসচন্দ্র তাহার পানে একবার চাহিলেন, ব্যস্তভাবে বালিশের তলায় একবার হাত দিলেন, যেন কি-একটা হারাইয়া গিয়াছে, প্রয়োজনের সময় হাত বাড়াইয়া পাইতেছেন না । তাহার পর হতাশভাবে পাশ ফিরিয়া মৃদু মৃদু বলিলেন, বিশু, বিশ্বেশ্বর, মন্ত্রীট একবার দে ভাই, মন্ত্রী হারিয়ে আর কতক্ষণ খেলি বল ? এ বিশ্বের দাবা খেলায় কৈলাসচন্দ্রের মন্ত্রী হারাইয়া গিয়াছে। বিশ্বপতির নিকটে তাহাই যেন কাতরে ভিক্ষা চাহিতেছে। শম্ভু মিশির নিকটে আসিয়া দাড়াইল, লখীয়ার মা প্রদীপ মুখের সম্মুখে ধরিয়া দেখিল বৃদ্ধের চক্ষু কপালে উঠিয়াছে, শুধু ওষ্ঠাধর তখনও যেন ক'পিয়া কশপিয়া কহিতেছে, বিশ্বেশ্বর | মন্ত্রী-হারা হয়ে আর : কতক্ষণ খেলা যায়, দে ভাই দে। পরদিন দয়ালঠাকুর চন্দ্রনাথকে পত্র লিখিয়া দিলেন যে, গত রাত্রে কৈলাসচন্দ্রের भृङ्गु श्हेब्रोप्छ् । শেষ 8??