প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ একটা সঙ্গিনার ডাল ঘাড়ে করিয়া দাত কিড়মিড় করিয়াও তেমনটি করিতে পারিতেন না । ড্রপলিন উঠিয়াছে, বোধ করি বা তিনি লক্ষ্মণই হইবেন—অল্প-স্বল্প বীরত্ব প্রকাশ করিতেছেন। এমনি সময়ে সেই মেঘনাদ কোথা হইতে একেবারে লাফ দিয়া সুমুখে আগিয়া পড়িল । সমস্ত স্টেজটমড়মড় করিয়ার্কাপিয়াছুলিয়া উঠিল—ফুটলাইটের গোটা পাঁচ-ছয় ল্যাম্প উন্টাইল্লা নিবিয়া গেল, এবং সঙ্গে সঙ্গে তাহার নিজের পেট-বাধা জরির কোমরবন্ধটা পটাসূ করিয়া ছিড়িয়া পড়িল। একটা হৈ চৈ পড়িয়া গেল ! তাহাকে বপিন্ধ পড়িবার জন্য কেহ বা সভয় চীংকারে অনুনয় করিয়া উঠিল, কেহ বা সিন ফেলিয়া দিবার জন্ত চেচাইতে লাগিল—কিন্তু বাহাদুর মেঘনাদ! কাহারও কোন কথায় বিচলিত হইল না। বঁ হাতের ধনুক ফেলিয়া দিয়া, পেন্টুলানের মূট চাপিয়া ধরিয়া ডান হাতের শুধু তীর দিয়াই যুদ্ধ করিতে লাগিলেন। o ধন্য বীর । ধন্ত বীরত্ব ! অনেকে অনেক প্রকার যুদ্ধ দেখিয়াছে মানি, কিন্তু ধন্বন্ধ নাই, বা হাতের অবস্থাও যুদ্ধক্ষেত্রের অমুকুল নয়—শুধু ডান হাতে এবং শুধু তীর দিয়া ক্রমাগত যুদ্ধ কে কবে দেবিয়াছে। অবশেষে তাহাতেই জিত। বিপক্ষকে সে মাত্র পলাইয়া আত্মরক্ষা করিতে হুইল । আনন্মের সীমা নাই—মগ্ন হইয়া দেখিতেছি এবং অপরূপ লড়াইয়ের জন্য মনে মনে তাহার শতকোটি প্রশংসা করিতেছি, এমন সময়ে পিঠের উপর একটা আঙুলের চাপ পড়িল ৷ মূখ ফিরাইয়া দেখি ইন্দ্র । চুপি চুপি কহিল, আয় শ্ৰীকান্ত, দিদি একবার তোকে ডাকচেন । তড়িৎপৃষ্ঠের মত সোজা খাড়া হইয়া উঠিলাম। কোথায় তিনি ? বেরিয়ে আয় না—বলচি। পথে আলিয়। সে শুধু কহিল, আমার সঙ্গে অায়। ৰলিয়া চলিতে লাগিল । গঙ্গার ঘাটে পৌঁছিয়া দেখিলাম, তাহার নৌকা বাধা আছে--নিঃশব্দে উভয়ে চড়িয়া বসিলাম, ইক্স বঁাধন খুলিয়া দিল । আবার সেই সমস্ত অন্ধকার বনের পথ বাহিয়া দুজনে শাহ জীৱ কুটীরে আসিয়া উপস্থিত হইলাম। তখন বোধ করি, রাত্রি আর বেশী নাই। একটা কেরোলিনের ডিৰ জালাইয়া দিদি বলিয়া আছেন। তাহার ক্রোড়ের উপর শাহ জীয় মাথা । তাহার পায়ের কাছে একটা প্রকাগু গোখরো সাপ লম্বা হুইয়৷ আছে। an দিদি মুম্বকণ্ঠে ঘটনাটি সংক্ষেপে বিবৃত করিলেন। আজ দুপুরবেলা কাহার খাটীতে সাপ ধরিবার বাৱনা থাকে। সেখানে ঐ সাপটিকে ধরিয়া যাহা ৰকৃশিশ Çs