প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/৩৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অনুপমার প্রেম গৃহিণী প্রায় কাদিয়া ফেলিলেন—তবে কি হবে! না খেয়ে এমন করে সমস্তদিন বাগানে ঘুরে বেড়ালে ক' দিন আর বঁাচবে ? তোরা বাছা যা হোক একটা বিহিত করে দে—না হলে বাগানের পুকুরে একদিন ডুবে মরব। বড়বোঁ কিছুক্ষণ ভাবিয়া-চিন্তিয়া বলিল, দেখে-শুনে একটা বিয়ে দাও ; সংসারের ভার পড়লে আপনি সব সেরে যাবে। বেশ কথা, তবে আজই এ-কথা আমি কর্তাকে জানাব। কর্তা এ কথা শুনিয়া অল্প হাসিয়া বলিলেন, কলিকাল! দাও—বিয়ে দিয়েই দেখ, যদি ভাল হয় । পরদিন ঘটক আসিল । অনুপমা বড়লোকের মেয়ে, তাহাতে রূপবতী, পাত্রের জন্য ভাবিতে হইল না। এক সপ্তাহের মধ্যেই ঘটক ঠাকুর পাত্র স্থির করিয়া জগবন্ধুবাবুকে সংবাদ দিলেন। কর্তা এ-কথা গৃহিণীকে জানাইলেন ; গৃহিণী বড়বোঁকে জানাইলেন ; ক্রমে অনুপমাও শুনিল । দুই-একদিনের পরে, একদিন দ্বিপ্রহরের সময়ে সকলে মিলিয়া অনুপমার বিবাহের গল্প করিতেছিল, এমন সময়ে সে এলোচুলে, আলু থালু বসনে একটা শুষ্ক গোলাপফুল হাতে করিয়া ছবিটির মত আসিয়া দাড়াইল। অমুর জননী কন্যাকে দেখিয়া ঈষৎ হাসিয়া বলিলেন, মা যেন আমার যোগিনী সেজেচে ? বড়বৌঠাকরুণও একটু হাসিয়া বলিল, বিয়ে হলে কোথায় সব চলে যাবে। দুটো-একটা ছেলে-মেয়ে হলে ত কথাই নেই । অনুপমা চিত্রাপিতার ন্যায় সকল কথা শুনিতে লাগিল। বোঁ আবার বলিল, মা, ঠাকুরঝির বিয়ের দিন কবে ঠিক হ’ল ? দিন এখনো কিছু ঠিক করা হয়নি। ঠাকুরজামাই কি পড়েন ? এইবার বি. এ. দেবেন। তবে ত বেশ ভাল বর। তাহার পর একটু হাসিয়া ঠাট্টা করিয়া বলিল, দেখতে কিন্তু খুব ভাল না হলে ঠাকুরবির আমার পছন্দ হবে না। \岛战金