পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/১৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ు ఫి শিখগুরু ও শিথজাতি বিশাল নদীগর্ভে নিমজ্জিত হইয়া সম্মুখে ও পশ্চাতে উভয়দিকে তাকাইতেছি কোনোদিকে কুল কিনারা দেখিতেছি না।” ফকির উক্ত বাক্যদ্বারা উভয় ধৰ্ম্মের প্রতিই তাহার অন্তরিক শ্রদ্ধা জানাইলেন । আজিজুদ্দীন তাহার সমসাময়িক ব্যক্তিগণের মধ্যে বিশেষ প্রসিদ্ধি লাভ করিয়াছিলেন । কবি ও বক্তা বলিয়া তাহার খাতি ছিল। প্রাচ্যসাহিত্য-বিজ্ঞানে তিনি সুপণ্ডিত ছিলেন ; আরবী ও পারসী শিক্ষার জন্ত তিনি আপন ব্যয়ে লাহোর নগরে একটি বিদ্যালয় স্থাপন করিয়া স্বীয় বিস্তানুরাগের পরিচয় প্রদান করিয়াছিলেন । তাহার রচিত রাজকীয় দলিলগুলি ভাষার মাধুর্য্য ও বাক্যবিন্যাসের শিষ্টতায় আদর্শ বলিয়া বিবেচিত হইত। লাহোরদরবারের অধিকাংশ সভাসদেরই ব্যবহারে রূঢ়ত ছিল । র্তাহাদের মধ্যস্থিত এই মার্জিতরুচি শাস্তগম্ভীর ফকিরের বিনয়গুণে, আগত্ত্বকগণ বিস্ময় বিষ্ট হইতেন । অনেক প্রসিদ্ধ পরিব্রাজক ও রাজপুরুষ মুক্তকণ্ঠে ফকির আজিজুদীনকে প্রশংসা করিয়াছেন। ১৮৩৫-৩৬ অব্দে বারণ চার্লস হগেল পঞ্চনদপ্রদেশ পরিভ্রমণ করেন। তিনি বলিয়াছিলেন—“ফকির আমার মনের উপরে বিশেষ প্রভাব বিস্তার করিয়াছেন।” ফেরোজপুরের দরবারে লর্ড এলেনবরা প্রকাগু সম্ভার মধ্যে ফকিরকে নিজের জেব ঘড়ি উপহার প্রদান করিয়া তাহাকে শিখ ও ইংরাজগবর্ণমেণ্টের শাস্তিরক্ষক বলিয়া প্রশংসা করেন। ফকির মৃত্যুশয্যাতেও শিখসৈন্তদিগকে শতক্ৰ পার হইতে নিষেধ করেন। ১৮৪৫ খৃষ্টাকে প্রথম শিখযুদ্ধের অন্নপূর্বে তিনি মৃত্যুমুখে পতিত হন। তাহার দুই কনিষ্ঠ সহোদরও লাহোরদরবারে প্রতিপত্তি লাভ করিয়াছিলেন । মহারাজ রূণজিতের রাজকৰ্ম্মচারীদিগের মধ্যে ধ্যানসিংহ সৰ্ব্বপ্রধান