পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/১৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উনবিংশ অধ্যায় ১ ৪৯ সহস্র ইংরাজসেনা লুধিয়ানা অবরুদ্ধদুর্গ রক্ষা করিয়া ২৮এ জানুয়ারী তারিখ (১৮৪৬) আশিওয়াল জনপদে শিখসৈন্যদলের সম্মুখীন হইল। অৰ্দ্ধচন্দ্রাকারে সুসজ্জিত শিখসৈন্যগণ গতিশীল বিপক্ষদের উপর গোলা-বুষ্টি করিতেছিল। সঙ্গীনধারী ইংরাজসৈন্যদল যখন ক্রমশঃ অগ্রসর হইতে হইতে শিথসৈন্যদলের উপর পতিত হইল ; তখন নিৰ্ভীক শিখবারের অসি চৰ্ম্ম হস্তে সম্মুখ সংগ্রামে শক্ৰ সংহার করিতে লাগিল । কিন্তু অচিরে সুপরিচালিত ইংরাজসৈন্য চারিদিক হইতে আক্রমণ করিয়া শিখদিগকে চমকিত করিয়া তুলিল, তাহারা ইতস্ততঃ বিক্ষিপ্ত হইয়া পলায়ন করিতে আরম্ভ করিল। শিথবীরগণের কেহ কেহ যুদ্ধক্ষেত্রে, কেহ কেহ বা নৌ-সেতু অতিক্রম করিয়া পলায়ন-কালে শতদ্রগর্ভে, জীবন হারাইল । তাহদের কামানগুলির ৫৬টা বিজয়ী ইংরাজসৈন্যেরা বলপূৰ্ব্বক অধিকার করিয়াছিল, অপরগুলিও শতক্র-গর্ভে ডুবিয়া গিরছিল। এই যুদ্ধে ইংরাজ পক্ষে হত ও আহতের সংখ্যা যথাক্রমে ১৫১ ও ৪১৩ । রণজয়ী ইংরাজ-সৈন্যদল অবিলম্বে শিখদের সোত্ৰাও তুর্গ অধিকার করিবার চেষ্টা করিতে লাগিল। ১৮৪৬ খৃষ্টাব্দের ১০ই ফেব্রুয়ারী ংরাজপক্ষীয় পনর সহস্র সৈন্য ষাটটা কামান সহ গাঢ় কুঞ্জটিকাসমাচ্ছন্ন রাত্রিকালে অতর্কিত ভাবে নীরবে শক্রফুর্গের সন্নিকটে উপনীত হইল। প্রভাতে কুয়াস কাটিয়া স্বর্যাকিরণে চতুর্দিক আলোকিত হইবামাত্র তাহারা গুলিবর্ষণ আরম্ভ করিল। পয়ত্রিশ সহস্ৰ শিখসৈন্য ৭৮টা কামান লইয়। দুর্গরক্ষার নিমিত্ত সংগ্রাম করিতেছিল । বিজয়লক্ষ্মী শিখদের প্রতি বিমুখ ছিলেন, তাহাদের সমস্ত চেষ্ট ব্যর্থ করিয়া ংরাজসৈন্য দুর্গ জয় করিল। যুদ্ধক্ষেত্রে ও নদীগর্ভে প্রায় দশ সহস্ৰ শিখ প্রাণদান করিল। ইংরাজপক্ষে ৩২০জন হত, ২০৬৩ জন আহত হইল ।