পাতা:শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতা-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


3:ళ শ্ৰীমদ্ভগবদ্গীত t প্রত্যুপকার করার সম্ভাবনা। সকলেই জানে, ধনসঞ্চয় করিলেই ইহজন্মেই “বড়মানুষী,” করা যায় ; এবং পরিশ্রম করিয়া অধ্যয়ন করিলেই ইহজন্মেই বিদ্যালাভ করা যায়। সকল প্রকার কৰ্ম্মের ফল, ইহজন্মেই এইরূপ পাওয়া গিয়া থাকে । তবে কতকগুলি কৰ্ম্ম আছে, তাহার বিশেষ প্রকার ফলের প্রত্যাশা ফরিতে আময় শিক্ষিত হইয়াছি। এই কৰ্ম্মগুলিকে সচরাচর পাপ পুণ্য বলিয়া থাকে। তাহার যে সকল ফল প্রাপ্ত হইবার প্রত্যাশা করিতে আমরা শিথিয়াছি, তাহা ইহজন্মে পাই না বটে। অমিয়া শিখিয়াছি যে দান করিলে স্বৰ্গলtভ হয়, কিন্তু ইহজীবনে কাহারও স্বৰ্গলাভ হয় না । কেহ বা মনে করেন, এক গুণ দিলে দশগুণ পাওয়া যায়, কিন্তু ইহজীবনে একগুণ দিলে অৰ্দ্ধগুণও পাওয়া যায় না। শুনা আছে, চুরি করিলে একটা ঘোরতর পাপ হয়। কিন্তু ইহজীবনে চুরি করিয়া সকলে প্লাজদণ্ডে পড়ে নী—সকলে সে পাপের কোন প্রকার দণ্ড দেখিতে পায় না। সকলে দেখিতে পায় না বলিয়া ইহজীবনে চুরির কোন প্রকার দও নাই—কৰ্ম্মফলভোগ লাই, এমত নহে । এবং দীনের যে কোন পুরস্কায় নাই তাহীও নহে। চিত্তপ্রসাদ আছে—পুনঃপুনঃ দীনে আপনার চিত্তের উন্নতি এবং মাহাত্ম্য বৃদ্ধি আছে। পাপ পুণ্যে ইহজীবনে কিরূপ সমুচিত কৰ্ম্মফল পাওয়া যায়, তাহ আমি গ্রন্থাস্তরে বুঝাইয়াছি, * পুনরুক্তির প্রয়োজন নাই। র্যাহাঁদের ইচ্ছা হইবে সেই গ্রন্থে দৃষ্টি কল্পিবেন। সেই গ্রন্থে ইহাও বুঝাইয়াছি, যে সম্পূর্ণ ধৰ্ম্মাচরণের স্বার ; ইহজীবনেই মুক্তিলাভ করা যায় । সেই মুক্তি কি ●कत्र

  • ধৰ্ম্মতত্ত্ব । - - |