পাতা:শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতা-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


» ፃ8 শ্ৰীমদ্ভগবদগীতা । কৰ্ম্ম বলে । কিন্তু ইহ। সত্য নহে শ্রেীত কৰ্ম্ম ও স্মাৰ্ত্ত কৰ্ম্ম ন৷ করিয়া কেহ ক্ষণ কাল তিষ্ঠিতে পারে না এবং এই সকল স্বাভাবিক নহে যে প্রকৃতির তাড়নায় বাধ্য হইয়া তাহা করিতে হয় । অতএব সাধারণতঃ যtহাকে কৰ্ম্ম বলে—যাহা কিছু করা যায়--তাহারই কথা হইতেছে বটে । ইহা অামি পূৰ্ব্বেও বলিয়াছি এক্ষণে ও বলিতেছি । গীতার ব্যাখ্যায় কৰ্ম্ম বলিলে, কৰ্ম্মমাত্রই বুঝিতে হইবে ; কেবল শ্রেীত স্মাৰ্ত্ত কৰ্ম্ম যে ভগবানের অভিপ্রেত নহে, তাহা এই শ্লোকেই দেথা যাইতেছে। কৰ্ম্মেন্দ্রিয়াণি সংযম্য য আস্তে মনসা স্মরন । ইন্দ্রিয়ার্থান বিমূঢ়াত্মা মিথ্যাচারঃ স উচ্যতে ॥ ৬ যে বিমূঢ়াত্মা, মনেতে ইন্দ্রিয়-বিষয় সকল স্মরণ রাথিয়া, কেবল কৰ্ম্মেন্দ্রিয় সংঘত করিয়া অবস্থিতি করে, সে মিথ্যাচারী। ৬ । ভগবান বলিয়াছেন যে কৰ্ম্মের অননুষ্ঠানেই নৈষ্কৰ্ম্ম পাওয়া যায় না এবং কৰ্ম্মত্যাগেই সিদ্ধি পাওয়া যায় না । কৰ্ম্মের অনঙ্গুষ্ঠানে যে নৈষ্কৰ্ম্ম্য ঘটে না, ভগবান তাহার এই প্রমাণ দিলেন, যে তুমি কৰ্ম্মের অনুষ্ঠান না করিলেও স্বভাবগুণেই তোমাকে কৰ্ম্ম করিতে বাধ্য হইতে হইবে । তার কৰ্ম্মত্যাগেই যে সিদ্ধি ঘটে না তাহার এই প্রমাণ দিতে ছেন, যে কৰ্ম্মেন্দ্রিয় সকল সংযত করিয়া, “কৰ্ম্ম করিব না” বলিয়া বসিয়া থাকিলেও, ইন্দ্রিয়ভোগ্য বিষয় সকল মনে আসিয়া উদিত হইতে পারে। তাহ হইলে সে মিথ্যাচার মাত্র । তাঁহাতে কোন সিদ্ধির সম্ভাবনা নাই । যদি কৰ্ম্মত্যাগ ও করা যায় না, এবং কৰ্ম্মত্যাগ করিলেও সিদ্ধি নাই, তবে কৰ্ত্তব্য কি, তাহাঁই এক্ষণে কথিভ হইতেছে ।