পাতা:সাধন-পথ.pdf/৬৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্ৰী উপদেশামৃত ] అరి 2 香 SÌ 侍 鲨 、 “ঈশ্বরে তদধীনেযু বালিশেষু দ্বিষৎসু চ। প্রেম-মৈত্রী-কুপােপেক্ষা 출. করোতি স মধ্যমঃ।”-শ্ৰীভাগবত। এই শিক্ষানুসারে সাধক যতদিন মধ্যম ভক্তপদাবীতে থাকেন, ততদিন তিনি ভক্তসেবায় বাধ্য। সর্বত্ৰ, কৃষ্ণসম্বন্ধ-দৃষ্টিবশতঃ শত্রুমিত্র ভক্তাভাক্তাদিভেদ উত্তম ভক্তের নাই। মধ্যমভক্ত ভজনপ্রিয়াসী। এই পঞ্চম শ্লোকে তঁাহার ভক্তগণের প্ৰতি আচরণ । নির্দেশ করিতেছেন। যোষিৎসঙ্গী প্রভৃতি। অভক্তগণকে দূরে রাখিয়াতত্তদোষশূন্য কিন্তু সম্বন্ধতত্ত্বজ্ঞানাভাবহেতু স্বল্পবুদ্ধি কনিষ্ঠগণকে কেবলবালিশ জানিয়া মধ্যম ভক্ত কৃপা করিবেন। তঁাহার মুখে কৃষ্ণনাম, শুনিয়া স্ব-সম্পর্কবোধে মনে মনে তঁাহাকে আদর করিবেন। আিম দীক্ষিত( কনিষ্ঠ ) ব্যক্তি ; যদি হরিভজনে প্ৰবৃত্ত থাকেন, তঁাহাকে প্ৰণতি দ্বারা আদর করিবেন। অন্যনিন্দাশূন্য মহাভাগৱতকে ঈপ্সিতসঙ্গ জানিয়া কৃতাৰ্থবোধে, আদর করিবেন। এই প্রকার বৈষ্ণবসেবাই সৰ্ব্বাৰ্থ সিদ্ধির মূল৷ ৫ ৷৷ শ্ৰীউপদেশাত্মত ভাষা - চ - ( শ্ৰীল। ঠাকুর ভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতী লিখিত ) { কৃষ্ণসহ কৃষ্ণনাম অভিন্ন জানিয়া। অপ্রাকৃত একমাত্ৰ সাধন মানিয়া ৷ যেই নাম লয়, নামে দীক্ষিত হইয়া । আদর করিবে: মনে স্বগোষ্ঠী জানিয়া ॥ " নামের ভজনে যেই কৃষ্ণসেবা করে। অপ্ৰাকৃত ব্ৰজে বসি সর্বদা অন্তরে ৷ মধ্যম বৈষ্ণব জানি ধরা তার পায়। আনুগত্য কর তার মনে আর কায় ৷ নামের ভজনে যেই স্বরূপ লভিয়া। অন্য বস্তু নাহি দেখে কৃষ্ণ তেয়াগিয়া ॥৯ কৃষ্ণেতর সম্বন্ধ না পাইয়া জগতে । সর্বজনে সমবুদ্ধি করে। digitized at BRCIndia.com