প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:সিমার - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


যোগাড় করতে হবে ! তোমার কোনো দোস্ত•••• সাথে সাথে সুখবাস বলে-না বাপজী ! কারুকে বিশ্বাস নাই । মানুষের মুন তো চাখতে পারি ন্যা । দোস্ত বলেন, বন্ধু বলেন, আপনিই সব আমার !! আচ্ছা, श्रंभो दि ङि शक्ष न्ता ? --ঈশা ! অস্ফট উচ্চারণ করেন গিয়াসজী । তারপব কিছুক্ষণ দম ধরে চিন্তা ক'রে বলেন--বেশ তাই হবে । ঈশাব সাথেই নিকে পড়িয়ে মেয়েকে হালাল করিয়ে তোমার হাতে তুলে দিবু ! ঈশা ভালো ছেলে । চাচার কথা ঠেলতে পারবে না । যাও । নিশ্চিন্ত থাকো তুমি । সুখবাস অরণ্যে ফিরে যায় । পরদিন ঈশাকে প্রস্তাব কবতেই ঈশা দীর্ঘসময় মাথা নিচু ক’রে থাকে । গিয়াসজী বলেন--বিয়ের পরদিন ভোরে মদিনাকে ত্যাগ করবে । তালাক ঈশা চাচার কাছে থেকে চলে যাবার জন্য পা বাড়াতেই গিন্যাসজী ধমক দিয়ে ওঠেন-কী হল তোমার ? কথা বলছি না যে ? তুমি রাজি নাও ? আমার হুকুম, তুমি নিকে করবে। যাও । সুখবাসের বাড়ি সন্ধ্যায় আসবে। আমি অপেক্ষা করব । রাত দশটা নাগাদ বিয়ের অনুষ্ঠান শু, 3 হয়। ঈশা সেজোগুজে এসেছে। চোখে সুমা আদি টেনেছে। গায়ে ধোয়া চলিদাবে আন্তরগুদ্ধ মেখেছে। খুব ধীর স্থির ভাবে মন্ত্র-কলমা ইত্যাদি বয়ান পড়ে গেল ঘাড় কাত ক’রে । বিয়ে গিয়াসজীই পড়ালেন । তাবত প্রাঙ্গণ লোকে গিজগিজ করছে। বৈঠকখানায় মুখোমুখি বর-কনে বসে আছে। হ্যাজাক জুলছে থামের পাশে ঝুলন্ত । মাঝে মাঝে লোকজন বৈঠকের বারান্দায় বর-কনেকে ঘিরে উপছে গিয়ে ঢেউয়ের মতন ছুঁয়ে সরে আসছে। ভিড়ের মধ্যে সুখবাস কোথাও নেই। গিয়াসজী চিন্তা করলেন, সুখবাস নিশ্চয়ই জঙ্গলে মাচায় শুয়ে আছে। আসলে সুখবাস হ্যাজাকের আলোর বাইরে ঝোপের আড়ালে দাঁড়িয়ে সব অনুষ্ঠান লক্ষ করছিল । জাহেদার বিয়ের মতন এ-অনুষ্ঠান নয়। সুখবাস কান খাড়া করে শুনবার চেষ্টা করে গিয়াসজী ঈশাকে কী বলেন । লোকের কথার গোলমালে, চাপা গুঞ্জনে, এলোমেলো শব্দের মধ্যে কোনো কথাই সে শুনতে পায় না । শীত পড়েছে । গায়ের জামার বোতাম আটকায় । মোটা চাদরখানা জড়িয়ে নেয় । অপেক্ষা করে । গিয়াসজী শরবত খাওয়াচ্ছেন ভাইপোকে । সেই ঐটো শরবত মদিনার মুখে তুলে দিচ্ছেন। ভিড়ের মধ্যে সাইফুল্লার দলও রয়েছে। তারাও দেখছে। গিয়াসজী ভাইপোর Sbr